রাস্তার উপর ফসল ও ফসলের খড় ইত্যাদি মাড়াই করা ও শুকানো

প্রশ্ন: ধানের মৌসুম এলে রাস্তার উপ‌রে ধান ও ধানের খড় শুকানো হয়। কখনো কখনো রাস্তা বন্ধ করে কাজ কর‌তে দেখা যায়। এ ব্যাপারে ইসলাম কী বলে বিস্তারিত জানতে চাই।

উত্তর: গ্রামে গঞ্জে দেখা যায়, ছোট-বড় প্রায় সকল রাস্তাই চাষিদের দখলে। অধিকাংশ রাস্তার উপর ধান মাড়াই, ভুট্টা মাড়াই, পাট ও পাটকাঠি শুকানো, ধানের খড় শুকানো সহ খড় ও পাটকাঠির গাদা তৈরি করা হচ্ছে। আর ধান, ভুট্টা ও পাটে একাকার হয়ে আছে রাস্তার দুই-তৃতীয়াংশ জায়গা। ফলে প্রতিনিয়তই ঘটছে দুর্ঘটনা এবং মানুষ নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে।

যেমন: রাস্তায় গাছ বা ফসল বিছিয়ে রাখার ফলে গাড়ির চাকা এলোমেলোভাবে চলার পাশাপাশি ধুলাবালি ও খড়-কুটা ওড়ার ফলে সাধারণ মানুষের শ্বাসকষ্ট ও নানা ধরণের শারীরিক সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে। বৃষ্টি হলে পড়ে থাকা অবশিষ্টাংশ পচে রাস্তাঘাট পিচ্ছিল, দুর্গন্ধ ও নোংরা হয়ে যায়-যা পরিবেশের জন্য স্বাস্থ্যকর নয়। কেউ তাদেরকে নিষেধ করলে তাকে বরং উল্টা তেড়ে মারতে আসে! যা খুবই দু:খ জনক ও অনভিপ্রেত।

কিন্তু রাস্তা তো এসব কাজের উদ্দেশ্যে তৈরি করা হয় নি এবং তা কারো ব্যক্তিগত সম্পত্তিও নয়। বরং রাস্তা হল সর্বসাধারণের চলাচলের স্থান। সুতরাং তাতে কারো এমন কোন কাজ করার অধিকার নেই যাতে মানুষের চলাচলে বাধা সৃষ্টি হয় বা এতে পথিক কোনভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। রাস্তায় এগুলো মাড়াই করা, শুকাতে দেয়া বা স্তুপ করে রাখা পথিককে কষ্ট দেয়া এবং চলাচলের পথে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির শামিল। অথচ রাস্তা বন্ধ করে কষ্ট দেওয়া তো দূরের কথা রাস্তায় কোনও কষ্টদায়ক জিনিস দেখলে ঈমানের দাবি হল, তা সরিয়ে দেওয়া। হাদিসে এটি ঈমানের সর্বনিম্ন স্তর হিসেবে সাব্যস্ত করা হয়েছে।

● রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন,
الْإِيمَانُ بِضْعٌ وَسَبْعُونَ – أَوْ بِضْعٌ وَسِتُّونَ – شُعْبَةً، فَأَفْضَلُهَا قَوْلُ لَا إِلَهَ إِلَّا اللهُ، وَأَدْنَاهَا إِمَاطَةُ الْأَذَى عَنِ الطَّرِيقِ، وَالْحَيَاءُ شُعْبَةٌ مِنَ الْإِيمَانِ.
“ঈমানের সত্তরের অধিক শাখা-প্রশাখা রয়েছে। সর্বোত্তম শাখা ‘লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহ’ (আল্লাহ ছাড়া সত্য কোন উপাস্য নাই) বলা, সর্বনিম্ন শাখা রাস্তা হতে কষ্টদায়ক বস্তু সরিয়ে দেওয়া, আর লজ্জা ঈমানের গুরুত্বপূর্ণ শাখা। ­(সহীহ মুসলিম, হাদিস ৩৫)

● আরেক হাদিসে এসেছে, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আবু যর গিফারী রা.-কে নসিহত করেন; তার মাঝে একটি উপদেশ ছিল,
وَإِمَاطَتُكَ الحَجَرَ وَالشَّوْكَةَ وَالعَظْمَ عَنِ الطَّرِيقِ لَكَ صَدَقَةٌ.
“রাস্তা থেকে পাথর, কাঁটা, হাড্ডি সরানোও সদকা।” (জামে তিরমিযী, হাদিস ১৯৫৬)

● আরও হাদিসে এসেছে,
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাহাবিদেরকে উদ্দেশ্য করে বললেন: তোমরা রাস্তার হক প্রদান করো।
সাহাবিগণ জিজ্ঞেস করলেন: রাস্তার হক কী?
তিনি বললেন;
غَضُّ الْبَصَر، وكَفُّ الأَذَى، ورَدُّ السَّلامِ، وَالأَمْرُ بالْمَعْروفِ، والنَّهْيُ عنِ الْمُنْكَرِ – متفقٌ عَلَيهِ.
ক. চোখ নিচু রাখা।
খ. কাউকে কষ্ট না দেয়া।
গ. সালামের উত্তর দেয়া।
ঘ. ভালো কাজের আদেশ দেয়া।
ঙ. এবং মন্দ কাজে নিষেধ করা।
(বুখারী/৬২২৯ ও মুসলিম/২১২১)

সুতরাং রাস্তাকে চলাচলের জন্য অবাধ ও কণ্টক মুক্ত রাখা জরুরি। আর ধান, গম, ভুট্টা, এগুলোর খড়কুটা ইত্যাদি শুকানো বা মাড়াই কাজের জন্য অন্য স্থান ব্যবহার করতে হবে; রাস্তা নয়। আল্লাহু আলাম।
▬▬▬▬◆◯◆ ▬▬▬▬
উত্তর প্রদানে:
আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল।
দাঈ, জুবাইল দাওয়াহ এন্ড গাইডেন্স সেন্টার, সৌদি আরব।