কোরআন ও সহীহ সুন্নাহ ভিত্তিক প্রশ্নোত্তর প্রচার করাই হল এই ওয়েবসাইটের মূল উদ্দেশ্য।।

স্বামী যদি স্ত্রীর কাছে সুন্দর দেখানোর জন্যে দাড়ি শেভ করে তাহলে কি করা উচিৎ

প্রশ্ন: স্বামী যদি স্ত্রীর কাছে সুন্দর দেখানোর জন্যে দাড়ি শেভ করে তাহলে কি করা উচিৎ?
▬▬▬▬◢◯◣▬▬▬▬
উত্তর:

দাড়ি রাখা ফরজ। দাড়ি কাটা, ছাটা, মুণ্ডন ও ফ্যাশন করা হারাম ও কবিরা গুনাহ। সুতরাং স্ত্রীকে খুশি করার জন্য দাড়ি কাটা বৈধ নয়।
দাড়ি বিষয়ে নিম্নে কয়েকটি হাদিস পেশ করা হল:
● আবদুল্লাহ ইবনে ওমর রা. বলেন,
ﺇﻧﻪ ﺃﻣﺮ ﺑﺈﺣﻔﺎﺀ ﺍﻟﺸﻮﺍﺭﺏ ﻭﺇﻋﻔﺎﺀ ﺍﻟﻠﺤﻴﺔ
“আল্লাহর রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মোচ কাটার ও দাড়ি লম্বা করার আদেশ করেছেন।’
(সহীহ মুসলিম ১/১২৯)

● বিভিন্ন হাদিসে আদেশের শব্দগুলোও বর্ণিত হয়েছে। যেমন:
ﺧﺎﻟﻔﻮﺍ ﺍﻟﻤﺸﺮﻛﻴﻦ، ﻭﻓﺮﻭﺍ ﺍﻟﻠﺤﻰ ﻭﺍﺣﻔﻮﺍ ﺍﻟﺸﻮﺍﺭﺏ
“মুশরিকদের বিরোধিতা কর। দাড়ি বাড়াও ও মোচ কাট।”
(আবদুল্লাহ ইবনে ওমর রা.-এর সূত্রে বুখারী ২/৮৭৫)

● রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আরও বলেন:
ﺧﺎﻟﻔﻮﺍ ﺍﻟﻤﺸﺮﻛﻴﻦ، ﻭﺍﺣﻔﻮﺍ ﺍﻟﺸﻮﺍﺭﺏ ﻭﺃﻭﻓﻮﺍ ﺍﻟﻠﺤﻰ
“মুশরিকদের বিরোধিতা কর এবং মোচ কাট ও দাড়ি পূর্ণ কর।” (ইবনে ওমর রা.-এর সূত্রে মুসলিম ১/১২৯)

● তিনি আরও বলেন:
ﺍﻧﻬﻜﻮﺍ ﺍﻟﺸﻮﺍﺭﺏ ﻭﺍﻋﻔﻮﺍ ﺍﻟﻠﺤﻰ
“মোচ উত্তমরূপে কাট এবং দাড়ি লম্বা কর।” (ইবনে ওমর রা. এর সূত্রে বুখারী ২/৮৭৫)
● হাদিসে আরও এসেছে:
ﺟﺰﻭﺍ ﺍﻟﺸﻮﺍﺭﺏ ﻭﺍﺭﺧﻮﺍ ﺍ ﻟﻠﺤﻰ، ﺧﺎﻟﻔﻮﺍ ﺍﻟﻤﺠﻮﺱ
“মোচ কাট ও দাড়ি ঝুলিয়ে দাও, অগ্নি পূজারীদের বিরোধিতা কর।” (আবু হুরায়রা রা.-এর সূত্রে মুসলিম ১/১২৯)
উপরের হাদিসগুলোতে চারটি শব্দ পাওয়া গেল :
ﺍﺭﺧﻮﺍ ـ ﺍﻋﻔﻮﺍ ـ ﺃﻭﻓﻮﺍ ـ ﻭﻓﺮﻭﺍ
এই সবগুলো শব্দ থেকে বোঝা যায়, আল্লাহর রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম লম্বা ও পূর্ণ দাড়ি রাখার আদেশ করেছেন। সুতরাং দাড়ি রাখা ফরজ।

তাছাড়া পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ ও সুন্দর মানুষ আল্লাহর রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নিজে এবং মানব সভ্যতার ইতিহাসে নবীদের পরেই সর্বোৎকৃষ্ট মানুষ সাহাবায়ে কেরাম দাড়ি রাখতেন।

সুতরাং আমরা যদি আল্লাহর ভালোবাসা পেতে চাই তাহলে আমাদের জন্য আবশ্যক হল নিঃস্বার্থভাবে প্রিয় নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এবং সাহাবায়ে কেরামের অনুসরণ করা।

◈ আল্লাহ তা’আলা বলেন:
لَّقَدْ كَانَ لَكُمْ فِي رَسُولِ اللَّـهِ أُسْوَةٌ حَسَنَةٌ لِّمَن كَانَ يَرْجُو اللَّـهَ وَالْيَوْمَ الْآخِرَ وَذَكَرَ اللَّـهَ كَثِيرًا
“যারা আল্লাহ ও শেষ দিবসের আশা রাখে এবং আল্লাহকে অধিক স্মরণ করে, তাদের জন্যে রসূলুল্লাহর মধ্যে উত্তম নমুনা রয়েছে।” (সূরা আহযাব ২১) অর্থাৎ আমরা আখারিতে সফলতা ও মুক্তি পেতে চইলে প্রিয়নবী সাল্লাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কে অনুসরণ করা ফরজ।

◈ তিনি আরও বলেন:

قُلْ إِن كُنتُمْ تُحِبُّونَ اللَّـهَ فَاتَّبِعُونِي يُحْبِبْكُمُ اللَّـهُ وَيَغْفِرْ لَكُمْ ذُنُوبَكُمْ ۗ وَاللَّـهُ غَفُورٌ رَّحِيمٌ
“বলুন, যদি তোমরা আল্লাহকে ভালবাস, তাহলে আমাকে অনুসরণ কর, তাহলে আল্লাহও তোমাদেরকে ভালবাসবেন এবং তোমাদের গুনাহ মোচন করবেন। আর আল্লাহ হলেন ক্ষমাকারী দয়ালু।” (সূরা আলে ইমরান: ৩১)

◈ তিনি আরও বলেন:
وَمَا آتَاكُمُ الرَّسُولُ فَخُذُوهُ وَمَا نَهَاكُمْ عَنْهُ فَانتَهُوا ۚ وَاتَّقُوا اللَّـهَ
“রসূল তোমাদেরকে যা দেন, তা গ্রহণ কর এবং যা নিষেধ করেন, তা থেকে বিরত থাক এবং আল্লাহকে ভয় কর।” (সূরা আল হাশর: ৭)

সুতরাং স্ত্রীকে খুশি করার জন্য অথবা সমাজের বাঁকা দৃষ্টি থেকে বাঁচার জন্য দাড়ি কাটা, ছাটা বা মুণ্ডণ করা নাজায়েজ। বর্তমান সমাজে দীন নিয়ে বেঁচে থাকতে হলে সকল ভ্রুকুটি ও ঝড়ঝঞ্জা উপেক্ষা করে দৃঢ়ভাবে দাঁড়িয়ে থাকতে হবে। অন্যথায় এই সমাজ আমাদেরকে দীন থেকে সরিয়ে দেবে।

স্ত্রীকে রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের আদর্শ পালন করার আবশ্যকতার বিষয়টি আন্তরিকতার সাথে বোঝাবেন। স্ত্রী যদি বুঝে তবে তো ভালো অন্যথায় স্ত্রীকে বাদ দেয়া গেলেও রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর আদর্শ ও ইসলামের একটি ফরজ বিধান কে কখনোই জলাঞ্জলি দেয়া যাবে না। এটাই ঈমানের দাবী।

আল্লাহ তওফিক দান করুন। আমীন।
▬▬▬▬◢◯◣▬▬▬▬
উত্তর প্রদানে:
আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল।
জুবাইল দাওয়াহ সেন্টার, সৌদি আরব।।

Share This Post