কোরআন ও সহীহ সুন্নাহ ভিত্তিক প্রশ্নোত্তর প্রচার করাই হল এই ওয়েবসাইটের মূল উদ্দেশ্য।।

সালাতে আল্লাহর সাথে কথপোকথন কিভাবে হয়?

প্রতি নামাযেই সূরা ফাতিহা পাঠ করতে হয়। সূরা ফাতিহা ছাড়া সালাত শুদ্ধ হয় না।
এই সূরা ফাতিহায় কিভাবে আল্লাহর সাথে কথা হয় তা দেখতে নিম্নোক্ত হাদিসটি পড়ুন:

হাদীসে কুদসীতে আছে,

قال الله تعالى قسمت الصلاة بينى وبين عبدى نصفين ولعبدى ما سأل فإذا قال العبد ( الحمد لله رب العالمين ). قال الله تعالى حمدنى عبدى وإذا قال (الرحمن الرحيم ). قال الله تعالى أثنى على عبدى. وإذا قال (مالك يوم الدين). قال مجدنى عبدى – وقال مرة فوض إلى عبدى – فإذا قال (إياك نعبد وإياك نستعين ). قال هذا بينى وبين عبدى ولعبدى ما سأل. فإذا قال (اهدنا الصراط المستقيم صراط الذين أنعمت عليهم غير المغضوب عليهم ولا الضالين ). قال هذا لعبدى ولعبدى ما سأل ». قال سفيان حدثنى به العلاء بن عبد الرحمن بن يعقوب دخلت عليه وهو مريض فى بيته فسألته أنا عنه

আল্লাহ তা’আলা বলেন, আমি সালাতকে আমার ও আমার বান্দার মাঝে ভাগ করে দিয়েছি। এবং আমার বান্দা যা চায় তা তাকে দেয়া হবে। সে যখন ‘আলহামদু লিল্লাহি রাব্বিল আলামীন’ বলে, তখন আল্লাহ বলেন, ‘আমার বান্দা আমার প্রশংসা করেছে’।

যখন সে বলে ‘আর রাহমানির রাহীম’ তখন আল্লাহ বলেন, ‘আমার বান্দা আমার প্রশংসা করেছে’।

যখন সে বলে ‘মালিকি ইয়াইমিদ্দীন’, তখন আল্লাহ বলেন, ‘আমার বান্দা আমার সম্মান করেছে’।

যখন সে বলে ‘ইয়্যাকা না’বুদু ওয়া ইয়্যাকা নাসতায়ীন’ তখন আল্লাহ বলেন, ‘এটা আমার আর আমার বান্দার ব্যাপার। আর আমার বান্দা যা চায়, তার জন্য তা দেয়া হবে।’

যখন সে বলে, ‘ইহদিনা. …. …. ضالين’ তখন আল্লাহ বলেন, ‘এটা আমার বান্দার। সে যা চায়, তাকে তা-ই দেয়া হবে।

(মুসলিম : ৯০৪, নাসায়ী : ১০৯৮২, তিরমিযী : ২৯৫৩, মুয়াত্তা মালেক : ২৭৮, ইবনে মাজাহ : ৩৭৮৪)

Share This Post