রমজান বিষয়ক কতিপয় গুরুত্বপূর্ণ হাদিস

عن ابن عمر رضي الله عنهما عن النبي صلى الله عليه وسلم قال: لا تصوموا حتى تروا الهلال ولا تفطروا حتى تروه فإن أغمي عليكم فاقدروا له
১. আবদুল্লাহ ইবনে উমর রা. হতে বর্ণিত। আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন,“তোমরা চাঁদ না দেখে রোজা রাখবে না এবং চাঁদ না দেখে রোজা ভঙ্গ করবে না। তবে যদি (শাবান মাসের ২৯ তারিখে) আকাশ মেঘাচ্ছন্ন থাকে তাহলে (শাবান মাস) ত্রিশ দিন পূর্ণ করবে।” (বুখারী ও মুসলিম)

عن أبي هريرة قال: قال رسول الله صلى الله عليه وسلم لا يتقدمن أحدكم رمضان بصوم يوم أو يومين، إلا أن يكون رجل كان يصوم صومه، فليصم ذلك اليوم

২. আবু হুরায়রা রা. হতে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, “তোমাদের কেউ যেন এক-দুদিন আগে থেকে রমজান শুরু না করে। তবে তবে কেউ যদি আগে থেকে নফল রোজা রাখে তাহলে সে রমজানের এক-দুদিন আগে তার সেই রোজা রাখতে পারে।” (বুখারী ও মুসলিম)
عن أبي هريرة رضي الله عنه أن رسول الله صلى الله عليه وسلم قال: إذا جاء رمضان فتحت أبواب الجنة وغلقت أبواب النار وصفدت الشياطين

৩. আবু হুরায়রা রা. হতে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন,“যখন রমজান মাস আগমন করে তখন জান্নাতের দরজা সমূহ খুলে দেওয়া হয়,জাহান্নামের দরজা সমূহ বন্ধ করে দেওয়া হয় এবং শয়তানদেরকে শিকল পরানো হয়।” (সহীহ মুসলিম)
عن أبي هريرة رضي الله عنه قال: قال رسول الله صلى الله عليه وسلم: إذا كان أول ليلة من شهر رمضان صفدت الشياطين، ومردة الجن، وغلقت أبواب النار، فلم يفتح منها باب، وفتحت أبواب الجنة، فلم يغلق منها باب، وينادي مناد: يا باغي الخير أقبل، ويا باغي الشر أقصر، ولله عتقاء من النار، وذلك كل ليلة

৪. আবু হুরায়রা রা. হতে বর্ণিত,রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন,“রমজান মাসের প্রথম রাতের আগমন ঘটলে শয়তান ও অবাধ্য জিনগুলোকে বন্দি করা হয়। জাহান্নামের দরজাগুলো বন্ধ করে দেওয়া হয়-এ মাসে আর তা খোলা হয় না। আর জান্নাতের দরজাসমূহ খুলে দেওয়া হয়, এ মাসে সেগুলো আর বন্ধ করা হয় না।
আর প্রত্যেক রাতে একজন ঘোষণাকারী এ ঘোষণা দিতে থাকে যে, হে কল্যাণ প্রত্যাশী, তুমি অগ্রসর হও! হে অসৎ অন্যায় প্রত্যাশী তুমি থেমে যাও!
এ মাসের প্রতি রাতে আল্লাহ তাআলা বহু মানুষকে জাহান্নাম থেকে মুক্তি দিয়ে থাকেন।” [তিরমিযী,সহীহ-আলবানি]

عَنْ سَهْلٍ عَنْ النَّبِيِّ صلى الله عليه وسلم قَالَ إِنَّ فِي الْجَنَّةِ بَابًا يُقَالُ لَهُ الرَّيَّانُ يَدْخُلُ مِنْهُ الصَّائِمُونَ يَوْمَ الْقِيَامَةِ لاَ يَدْخُلُ مِنْهُ أَحَدٌ غَيْرُهُمْ يُقَالُ أَيْنَ الصَّائِمُونَ فَيَقُومُونَ لاَ يَدْخُلُ مِنْهُ أَحَدٌ غَيْرُهُمْ فَإِذَا دَخَلُوا أُغْلِقَ فَلَمْ يَدْخُلْ مِنْهُ أَحَدٌ

৫. সাহল রা. হতে বর্ণিত। নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন,“জান্নাতে রাইয়ান নামক একটি দরজা আছে। এ দরজা দিয়ে কিয়ামতের দিন কেবল রোজাদারগণ প্রবেশ করবে। তাদের ব্যতীত আর কেউ এ দরজা দিয়ে প্রবেশ করতে পারবে না। ঘোষণা দেওয়া হবে,রোজাদারগণ কোথায়? তখন তারা দাঁড়াবে। তারা ব্যতীত আর কেউ এ দরজা দিয়ে প্রবেশ করবে না। তাদের প্রবেশের পরই দরজা বন্ধ করে দেওয়া হবে। যাতে করে এ দরজাটি দিয়ে আর কেউ প্রবেশ না করে।” [বুখারী ও মুসলিম]
عن ابن عباس رضي الله عنهما قال: قال رسول الله صلى الله عليه وسلم: عمرة في رمضان تعدل حجة

৬. ইবনে আব্বাস রা. হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, “রমজান মাসে একটি উমরা হজ্জের সমপরিমান।” [সহীহ বুখারী]

عن أبي هريرة رضي الله عنه أن رسول الله صلى الله عليه وسلم قال: قال الله عز وجل: كل عمل ابن آدم له إلا الصيام، فإنه لي وأنا أجزي به، والصيام جنة، فإذا كان يوم صوم أحدكم، فلا يرفث يومئذ ولا يصخب، فإن سابه أحد أو قاتله، فليقل: إني امرؤ صائم، والذي نفس محمد بيده، لخلوف فم الصائم أطيب عند الله، يوم القيامة، من ريح المسك

৭. আবু হুরায়রা রা. হতে বর্ণিত। রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন,আল্লাহ তাআলা বলেছেন,“রোজা ছাড়া বনী আদমের প্রতিটি কাজ তার নিজের জন্য। রোজা শুধু আমার জন্য।আমিই তার প্রতিদান দেব।
রোজা হল ঢাল। সুতরাং তোমাদের মাঝে যে রোজা রাখে সে যেন অশ্লীল আচরণ ও শোরগোল থেকে বিরত থাকে। যদি তার সাথে কেউ ঝগড়া-বিবাদ কিংবা মারামারিতে লিপ্ত হতে চায় তবে তাকে বলে দেবে,আমি রোজাদার।
ঐ সত্ত্বার শপথ! যার হাতে মুহাম্মাদের প্রাণ। নিশ্চয়ই আল্লাহর কাছে রোজাদারের মুখের দুর্গন্ধ মিশকের চেয়েও অধিক সুগন্ধিময়।” (বুখারী ও মুসলিম)
▬▬▬▬✿◈✿▬▬▬▬

অনুবাদ ও গ্রন্থনায়:

আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল। দাঈ, জুবাইল দাওয়াহ এন্ড গাইডেন্স সেন্টার, সৌদি আরব।