কোরআন ও সহীহ সুন্নাহ ভিত্তিক প্রশ্নোত্তর প্রচার করাই হল এই ওয়েবসাইটের মূল উদ্দেশ্য।।

রমজানে কি তাহাজ্জুদ পড়া যাবে?

প্রশ্ন:-রমজানে কি তাহাজ্জুদ পরা যাবে? যদি ইশার পরে তারাবীর নামাজ কিছু বাকি রেখে শেষ রাতে আরো একটু এড করে কিছু নামাজ পড়ি তাহলে কি তা পরা যাবে?

উত্তর:-তারাবীহ ও বিতর সহ ১১ বা ১৩ রাকআতে সীমাবদ্ধ থাকাই শ্রেয়। কারণ রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম রামাযান অথবা অন্যমাসে এই সংখ্যায় রাতের নফল সালাত আদায় করতেন। তবে খুব বেশি আগ্রহ হলে আরও অতিরিক্ত রাতের নফল সালাত আদায় করা যাবে। এর অনুমতি প্রসঙ্গে আলাদা হাদিস বিদ্যমান রয়েছে। নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন:
صلاة الليل مثنى مثنى، فإذا خشي أحدكم الصبح صلى ركعة واحدة توتر له ما قد صلى».
“রাতের সালাত দু’রাকাত, দু’রাকাত, যখন তোমাদের কেউ ভোর হওয়ার আশংকা করবে, সে এক রাকাত সালাত আদায় করবে, যা তার পূর্বের সালাতগুলো বেজোড় করে দিবে” (বুখারি, হা/ ৯৯০ ও মুসলিম হা/৭৪৯)

– ইচ্ছা করলে ইশার পরে তারাবীহ সালাত কিছু বাকি রেখে ভোর রাতে সেগুলো অথবা সেগুলোর সাথে যুক্ত করে আরও কিছু নফল সালাত আদায় করতেও কোনো আপত্তি নাই ইনশাআল্লাহ।

উত্তর প্রদানে:

আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল মাদানী

Share This Post