যৌতুক একটি অবৈধ ও ঘৃণিত প্রথা

প্রশ্ন: ইসলামে দৃষ্টিতে যৌতুক গ্রহণের বিধান কি? দয়া করে জানাবেন।

উত্তর:

যৌতুক প্রথা বিশেষ করে ভারত উপমহাদেশে প্রচলিত একটি জঘন্য কুপ্রথা। মূলত: হিন্দুদের থেকে মুসলিমদের মাঝে এ কুপ্রথাটির অনুপ্রবেশ ঘটেছে। ইসলামের সাথে যৌতুকের কোন সম্পর্ক নেই।
শরীয়তের দৃষ্টিতে যৌতুক একটি অবৈধ ও ঘৃণিত প্রথা, যা কনে পক্ষের উপর অর্থনৈতিক জুলুম এবং অন্যায়ভাবে অর্থ উপার্জনের একটি হীন মাধ্যম।

▪আল্লাহ তা’আলা পবিত্র কুরআনে ইরশাদ করেন:
وَلَا تَأْكُلُوا أَمْوَالَكُمْ بَيْنَكُمْ بِالْبَاطِلِ
“তোমরা নিজেদের মধ্যে একে অন্যের অর্থ-সম্পদ অন্যায়ভাবে গ্রাস করো না।” [সূরা বাকারা:১৮৮]
যৌতুক গ্রহণ করা অন্যায়ভাবে অর্থ গ্রাস করার শামিল। সুতরাং তা হারাম।

❖ যৌতকু নয়; মোহর:

ইসলামী শরীয়তে যৌতুকের আদৌ কোন স্থান নেই বরং বিয়ে-শাদীতে শরীয়তের নির্দেশনা যৌতুকের সম্পূর্ণ বিপরীত। তা হচ্ছে স্বামীই স্ত্রীকে দেনমোহর হিসেবে শরীয়ত কর্তৃক নির্ধারিত সম্পদ আবশ্যিকভাবে প্রদান করবে।
ইসলামে বিবাহ বন্ধনে মোহরানার গুরুত্ব অত্যধিক। মোহর প্রদান স্বামীর অন্যতম প্রধান দায়িত্ব এবং স্ত্রীর মৌলিক অধিকার।
▪ মোহরানা প্রদান বিষয়ে পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তা’আলা সুস্পষ্টভাবে নির্দেশ দিয়েছেন:
وَآتُوا النِّسَاءَ صَدُقَاتِهِنَّ نِحْلَةً
“আর তোমরা স্ত্রীদেরকে তাদের দেনমোহর খুশী মনে প্রদান করবে।” [সূরা নিসা:৪]

▪ অন্য এক আয়াতে আল্লাহ তাআলা বলেন:
وَأُحِلَّ لَكُمْ مَا وَرَاءَ ذَلِكُمْ أَنْ تَبْتَغُوا بِأَمْوَالِكُمْ مُحْصِنِينَ غَيْرَ مُسَافِحِينَ
“এদের তথা মুহাররামাত ব্যতিত তোমাদের জন্য সকল নারীদের হালাল করা হয়েছে। শর্ত হচ্ছে-তোমরা তোমাদের অর্থের বিনিময়ে বিবাহের উদ্দেশ্যে তাদেরকে সন্ধান করো, ব্যভিচারের উদ্দেশ্যে নয়।” [সূরা নিসা:২৪]

অবশ্য কোনরূপ দাবি-দাওয়া বা চাপ প্রয়োগ ব্যতিরেকে কন্যাপক্ষ যদি বরকে স্বেচ্ছায় অঢেল সম্পদও প্রদান করে তাতে কোন দোষ নেই। তখন এটি উপহার হিসেবে গণ্য হবে। কিন্তু চুক্তি ভিত্তিক, চাপ প্রয়োগ বা দাবি করে একটি ফুটা পয়সাও গ্রহণ করাও বরের জন্য হারাম।
কোন ব্যক্তি অজ্ঞতা বশত: যদি যৌতুক গ্রহণ করে থাকে তাহলে ইসলামের বিধান জানার পর তা কনের অবিভাকের নিকট ফিরিয়ে দেয়া অপরিহার্য। অন্যথায় সে কিয়ামতের কোর্টে অন্যের সম্পদ অন্যায়ভাবে গ্রাস করার অপরাধে দণ্ডিত হবে-যার পরিণত অত্যন্ত ভয়াবহ। আল্লাহ ক্ষমা করুন। আমীন।

❖ যৌতুক একটি দণ্ডনীয় অপরাধ:

উল্লেখ্য যে, বাংলাদেশ সরকারী আইনে যৌতুক দেয়া ও নেয়া উভয়টি দণ্ডনীয় অপরাধ। যার শাস্তি পাঁচ বছর কারাদণ্ড সাথে অর্থদণ্ডও হতে পারে।
সুতরাং যৌতুক কে না বলুন। নিজে সকর্ত হোন এবং অন্যদেরকে সতর্ক করুন। আল্লাহ তাওফিক দানকারী।
——-=—-
উত্তর প্রদানে:
আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল
দাঈ, জুবাইল দাওয়াহ এন্ড গাইডেন্স সেন্টার, ksa

Share On Social Media