বাতাসকে গালি দেওয়া নিষেধ

প্রশ্ন: হাদিসে বাতাসকে গালি দিতে নিষেধ করা হয়েছে। কিন্তু অনেক সময় বেশি বৃষ্টি বা তুষার ঝড় হলে আমরা বলে থাকি যে, আজ আবহাওয়া খারাপ, বাইরে/কাজে/ স্কুলে যাব না ..ইত্যাদি। যদি এটা এমনি কথার কথা হয়; কোন অভিযোগ স্বরূপ না হয় তাহলেও কি তা হাদিস অনুযায়ী গালি বা আকিদাগত ত্রুটি হিসেবে গণ্য হবে?▬▬▬▬▬▬▬✿◈✿▬▬▬▬▬▬▬
উত্তর: উবাই ইবনে কাব রা. থেকে বর্ণিত আছে, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন,
لا تسبوا الريح، فإذا رايتم ما تكرهون فقولوا
‘‘তোমরা বাতাসকে গালি দিও না। তোমরা যদি বাতাসের মধ্যে তোমাদের অপছন্দনীয় কিছু প্রত্যক্ষ করো তখন তোমরা বলো,
أللهم إنا نسألك من خير هذه الريح وخير ما فيها وخير ما أمرت به، ونعوذبك من شر هذه الريح وشر ما فيها وشر ما أمرت به
‘‘হে আল্লাহ, এ বাতাসের যা কল্যাণকর, এতে যে মঙ্গল নিহিত আছে এবং যতটুকু কল্যাণ করার জন্য সে অদিষ্ট হয়েছে ততটুকু কল্যাণ ও মঙ্গল আমরা তোমার কাছে প্রার্থনা করি। আর এ বাতাসের যা অনিষ্টকর, তাতে যে অমঙ্গল লুকায়িত আছে, এবং যতটুকু অনিষ্ট সাধনের ব্যাপারে সে আদিষ্ট হয়েছে তা [অমঙ্গল ও অনিষ্ঠতা] থেকে আমরা তোমার কাছে আশ্রয় চাই। [তিরমিজি হাদিসটিকে সহীহ বলেছেন]
এ হাদিস থেকে নিম্নোক্ত বিষয়গুলো জানা যায়:
১. বাতাসকে গালি দেওয়া নিষেধ।
২. মানুষ যখন কোন অপছন্দনীয় জিনিস দেখবে তখন কল্যাণকর কথার মাধ্যমে দিক নির্দেশনা দান করবে।
৩. বাতাস আল্লাহর পক্ষ থেকে আদিষ্ট, একথার দিক নির্দেশনা।
৪. বাতাস কখনো কল্যাণ সাধনের জন্য আবার কখনো অকল্যাণ করার জন্য আদিষ্ট হয়।
[উৎস: মুহাম্মদ বিন আব্দুল ওহহাব রচিত কিতাবুত তাওহীদ থেকে সংগৃহিত (সামান্য পরিবর্তিত) ইসলামহাউজ.কম]

◼ ঝড়বৃষ্টি হলে ‘আজকে আবহাওয়া খারাপ, বাইরে/কাজে/ স্কুলে যাব না..ইত্যাদি বলার দ্বারা আবহাওয়ার অবস্থা বর্ণনা করা উদ্দেশ্য থাকে; গালি দেয়া উদ্দেশ্য থাকে না। সুতরাং এতে কোন সমস্যা নেই ইনশাআল্লাহ। আল্লাহু আলাম।
▬▬▬▬✿◈✿▬▬▬▬
উত্তর প্রদানে:
আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল।
দাঈ, জুবাইল দাওয়াহ এন্ড গাইডেন্স সেন্টার, সৌদি আরব।

Share On Social Media