ফরয নামাযের সালাম শেষে প্রথমে এক বার আল্লাহু আকবার, নাকি তিন বার আস্তাগফিরুল্লাহ

ফরয নামাযের সালাম শেষে প্রথমে এক বার আল্লাহু আকবার, নাকি তিন বার আস্তাগফিরুল্লাহ? একটি দলিল ভিত্তিক পর্যালোচনা
▬▬▬◍❂◍▬▬▬
লেখক: আব্দুর রাকীব মাদানি
দাঈ, দাওয়া’হ সেন্টার খাফজী, সউদি আরব
সম্পাদনায়: আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল মাদানি

১-বিষয়টি অবতারণার কারণ:

আমরা জানি, আমাদের সমাজে নামায শিক্ষার সময় সাধারণত: এই শিক্ষা নেওয়া হয় বা দেওয়া হয় যে, ফরয সালাতে সালাম ফিরানোর পর প্রথমে এক বার সশব্দে আল্লাহু আকবার বলতে হবে অতঃপর নীরবে তিন বার আস্তাগফিরুল্লাহ এবং আমাদের আহলুল হাদিস সমাজের বিভিন্ন মসজিদে মুসল্লিগণকে জোর শব্দে এই আমলটি করতেও দেখা যায়। এছাড়া সালাফী আলেমগণের প্রচলিত প্রসিদ্ধ বাংলা সালাত শিক্ষার বই-পুস্তকেও এই মাসআলা দেখা যায়। কিন্তু আশ্চর্য হলাম, যখন সউদী আরবের সমাজে মুসল্লিদের নামাযান্তে ১বার উচ্চ কন্ঠে আল্লাহু আকবার বলতে শুনলাম না; অথচ এখানে সালাম শেষে উচ্চ স্বরে কিছুক্ষণ যিকর ও দুআ পড়ার প্রচলন রয়েছে। আর না এখানকার বিজ্ঞ উলামাদের বই-পুস্তকে এবং ফতোয়ায় এই বিধানটি লক্ষ্য করলাম। আরো আশ্চর্য হলাম যখন প্রসিদ্ধ চার মাযহাবের ফিকহের বই পুস্তকেও সালাম শেষে এক বার জোর শব্দে আল্লাহু আকবার বলতে হবে বলে কোনো বিধান অবলোকন করলাম না; বরং তারা সকলে প্রথমে ৩ বার আস্তাগফিরুল্লাহ বলার কথা উল্লেখ করেছেন, যা লেখার শেষ পয়েন্টে দেখা যেতে পারে। তাই এই বিষয়টি নিয়ে বহু পূর্বে মনে কৌতূহল জেগেছিল। সম্প্রতি সাধ্যানুযায়ী এ সম্বন্ধে দলিল-প্রমাণগুলির সাধারণ অধ্যয়ন করার চেষ্টা করলাম। অবশেষে যা অবগত হলাম, তা আপনাদের জ্ঞাতার্থে তুলে ধরা ভাল মনে করছি। ওয়াল্লাহু হুআল্ মুআফ্ফিক্ ওয়াল্ মুস্তাআন।

বক্ষমাণ লেখাটির মূল বিষয় হল, সালাম ফিরানোর পর সর্ব প্রথম কি বলতে হবে এবং কত বার বলতে হবে?

২-যারা সালাম শেষে ১ বার জোর শব্দে আল্লাহু আকবার বলতে হবে বলে মত দিয়েছেন, তাঁদের মন্তব্য ও দলিল:

উল্লেখ্য যে, মুতাকাদ্দেমীন (প্রাচীন) উলামাদের কেউ এমন বলেছেন বলে আমার জানা নেই। কিন্তু বর্তমান যুগের বাংলা ও উর্দুভাষী আহলে হাদিস উলামা ও লেখকগণের নামায শিক্ষার বইতে উপরোক্ত মত পাওয়া যায়। আমরা প্রথমে তাদের লেখা বই থেকে কিছু বিবরণ তুলে ধরবো ইনশাআল্লাহ।

ক-‘আইনী তুহ্ফা সালাতে মুস্তফা’র সম্মানিত লেখক বলেন, ‘আল্লাহর রসূল সল্লাল্লা-হু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ফরয নামাযের সালাম ফিরেই আল্লাহ আকবার জোরে বলতেন। ইবনে আব্বাস রা. বলেন, আমি ঐ তাকবীর শুনে রসূলুল্লাহ সল্লাল্লাহু আলাইহি অসাল্লাম এর নামায শেষ হওয়া বুঝতে পারতাম (বুখারী, মুসলিম, মিশকাত ৮৮ পৃঃ)’। [আইনী তুহ্ফা সালাতে মুস্তফা, অধ্যাপক হাফিয শাইখ আইনুলবারী, ১ম খন্ড পৃঃ ১৫০]

খ-‘ছালাতুর রাসূল (ছাঃ)’ এর শ্রদ্ধেয় লেখক বলেন, ‘অতঃপর একবার সরবে ‘আল্লাহু আকবার’ (মুত্তাফাক্ব আলাইহ, মিশকাত হা/৯৫৯; বুখারী ফতহ সহ হা/৮৪১-৮৪২) এবং তিনবার ‘আসতাগফিরুল্লা-হ’ ও একবার ‘আল্লা-হুম্মা আন্ তাস সালা-মু অ-মিন্কাস সালা-মু, তাবা-রাকতা ইয়া-যাল জালা-লি ওয়াল ইকরা-ম’ বলে (মুসলিম, মিশকাত হা/৯৬১) ডাইনে অথবা বামে কিংবা সরাসরি মুক্তাদীগণের দিকে ফিরে বসবে (বুখারী, মুসলিম, মিশকাত হা/৯৪৪-৪৬)।’ [ছালাতুর রাসূল (ছাঃ), ড. মুহাম্মদ আসাদুল্লাহ আল গালিব, পৃঃ ১৩২]

গ-‘নামাযের মাসায়েল’ এর মুহতারাম লেখক বলেন, ‘মাসআলা-২৬০: ফরজ নামাজ থেকে সালাম ফিরানোর পর উচ্চস্বরে একবার ‘আল্লাহু আকবর’ এবং নিম্নস্বরে তিনবার ‘আস্তাগফিরুল্লাহ’ অতঃপর ‘আল্লাহুম্মা আন্ তাসসালাম ওয়া মিনকাস্ সালাম তাবারাকতা ইয়া যাল জালালি ওয়াল্ ইকরাম’ বলা সুন্নাত।
আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস রা. থেকে বর্ণিত, আমরা নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর ফরজ নামাজ শেষ হওয়ার আন্দাজ করতাম তাকবীরের আওয়াজ দ্বারা। (বুখারী, মুসলিম)। [নামাযের মাসায়েল (বাংলা অনুদিত), মুহাম্মদ ইকবাল ক্বীলানী, পৃঃ ৭০]

দেখা যাচ্ছে, উপরোক্ত লেখকগণ সালাম শেষে প্রথমে এক বার ‘আল্লাহু আকবার’ বলার পক্ষে মত ব্যক্ত করেছেন এবং তা জোর শব্দে বলতে বলেছেন। তার পর ৩ বার আস্তাগফিরুল্লাহ। প্রথমে এক বার আল্লাহু আকবার বলার প্রমাণ স্বরূপ তারা সকলে যেই দলিলটি পেশ করেছেন বা হাওয়ালা দিয়েছেন, সেটি হল ইবনে আব্বাস রা. এর এই হাদিস:

عن ابن عباس رضي الله عنهما قال: “كنتُ أعرفُ انقضاءَ صلاةِ النبي صلى الله عليه وسلم بالتكبير” رواه البخاري في كتاب الأذان رقم 842

“ইবনে আব্বাস রা. হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, “আমি নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের নামাযের শেষ হওয়া জানতে পারতাম তাকবীরের মাধ্যমে।” [বুখারী, আযান অধ্যায়, নং (৮৪২) মুসলিম, মসজিদ অধ্যায়, নং (১৩১৬)]

অন্য সূত্রে বর্ণনাটি বহু বচনে এই ভাবে উল্লেখ হয়েছে, “আমরা রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর নামায শেষ হওয়া জানতে পারতাম না তাকবীর (এর আওয়াজ শোনা) ছাড়া”। [ফাতহুলবারী, ২/৪২১]

৩–ইবনে আব্বাস রা. কর্তৃক বর্ণিত হাদিস “আমি তাকবীরের মাধ্যমে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের নামাযের শেষ হওয়া জানতে পারতাম।” এর পর্যালোচনা:

◈ পর্যালোচনা নং (১): ইবনে আব্বাস রা. এর এই বর্ণনা একটি শারঈ মূল বিধানের বিপরীত:

এ কথা দলিল ও উম্মতের ইজমা দ্বারা সাব্যস্ত যে, নামায শেষ হয় বা সম্পন্ন হয় সালামের মাধ্যমে কিন্তু ইবনে আব্বাস রা. এর এই বর্ণনানুযায়ী তিনি নামায শেষ হওয়া জানতে পারতেন তাকবীরের মাধ্যমে, যা একাধিক দলিল, ইজমায়ে উম্মত ও সালাতে সালাম ফিরানোর মূল নিয়মের বিপরীত। এই কারণে সহীহ বুখারীর ভাষ্যকার ইবনে হাজার আসক্বালানী রাহ. বলেন, “এটা ইবনে আব্বাস রা. বলেছেন বলে মতভেদ রয়েছে। আয়ায বলেন, বাহ্যত দৃষ্টিতে মনে হচ্ছে, তিনি (ইবনে আব্বাস) জামাআতে উপস্থিত ছিলেন না। কারণ তিনি ছোট ছিলেন, যে কারণে হয়তো তিনি বরাবর জামাআতে উপস্থিত হতেন না। আর জামাআতে হাজির হওয়া তার উপর জরুরিও ছিল না। তাই তিনি নামাযের শেষ হওয়াটা উপরোক্ত তাকবীরের মাধ্যমে বুঝতে পারতেন।

(আয়ায) ব্যতীত অন্য বিদ্বান বলেন, “হতে পারে তিনি নামাযের কাতারগুলোর শেষ দিকে উপস্থিত ছিলেন। তাই তিনি সালামের মাধ্যমে নামায শেষ হওয়াটা বুঝতে পারেন নি; বরং তাকবীরের মাধ্যমে বুঝতে পারেন”। [ফাতহুল বারী, ২/৪২১]

তাঁদের বাহ্যিক অর্থ গ্রহণ না করার কারণ হচ্ছে, একাধিক হাদিস দ্বারা এটা প্রমাণিত যে, তিনি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাকবীরের মাধ্যমে নামায শুরু করতেন এবং সালামের মাধ্যমে নামায শেষ করতেন। [দেখুন, তিরমিযী নং (২৩৮) ইবনে মাজাহ নং (২৭৬) বায়হাক্বী নং (৩৭৮৫) সহীহ সুনান আবু দাউদ নং (৬১৯) সহীহ সুনান ইবনে মাজাহ নং (২২২)]

যাই হোক হাদিসটির বাহ্যিক অর্থ গ্রহণ করা সম্ভব নয়, কারণ নামায শেষ হয় সালামের মাধ্যমে আর তিনি বলেছেন, “আমি বুঝতে পারতাম তাকবীরের মাধ্যমে।” তাই ইসালামি বিদ্বানগণ তার কথার অন্য ব্যাখ্যা দেওয়ার চেষ্টা করেছেন। আর এমন হলে, সালামের পর প্রথমে এক বার তাকবীর দেওয়া সাব্যস্ত হয় না।

◈ পর্যালোচনা নং (২): হাদিসটির বাহ্যিক অর্থ দ্বারাও ১বার আল্লাহু আকবার বলা বুঝায় না।

হাদিসটির বাহ্যিক অর্থ ও এ কথার পক্ষে নয় যে, সালামের পর সর্বপ্রথম ‘আল্লাহু আকবার’ বলতে হবে এবং তা একবার বলতে হবে। আমি আরও একবার হাদিসের হুবহু অর্থ তুলে ধরলাম। “আমি নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের নামাযের শেষ হওয়া জানতে পারতাম তাকবীরের মাধ্যমে।” [বুখারী, আযান অধ্যায়, নং (৮৪২) মুসলিম, মসজিদ অধ্যায়, নং (১৩১৬)

হাদিসটির বাহ্যিক অর্থে কি এটা রয়েছে যে, সালামের পর প্রথমে একবার সশব্দে ‘আল্লাহু আকবার’ বলতে হবে? তাই সালামের পর এক বার সশব্দে ‘আল্লাহু আকবার’ বলার বিধান যারা এই হাদিসের আলোকে দিয়েছেন, তারা কোন্ শব্দ থেকে তা গ্রহণ করেছেন, তা প্রশ্নবিদ্ধ। হ্যাঁ, তবে এটা অনুমান করা যায় যে, নামায শেষে তাকবীর রয়েছে। কিন্তু সেটা সালামের পর প্রথম শব্দ এবং তা একবার-এটা কখনও বুঝা যায় না।

◈ পর্যালোচনা নং (৩): উলামাগণ হাদিস টি থেকে যা ইস্তিদলাল করেছেন বা বুঝেছেন।

সিংহভাগ মুহাদ্দিস ও উলামা হাদিস টি দ্বারা যা দলিল দিয়েছেন বা যা ইস্তিদলাল করেছেন তা হল, সালামের পর উচ্চস্বরে যিকর করা বৈধ; সালামের পর প্রথমে একবার তাকবীর দিতে হবে তা নয়। ইমাম বুখারী রাহ. আলোচ্য ইবনে আব্বাস রা. এর হাদিসের ঠিক পূর্বে স্বয়ং ইবনে আব্বাসের বর্ণনায় আর এক হাদিস উল্লেখ করেছেন, যাতে নামাযের পর উচ্চস্বরে যিকরের বর্ণনা এসেছে। যা দ্বারাও অনুমান করা যায় যে, হাদিসটির উদ্দেশ্য হচ্ছে, সশব্দে যিকর করার প্রামাণিকতা। তিনি রা. বলেন, “যিকরের মাধ্যমে আওয়াজ উঁচু করা-যখন লোকেরা ফরয নামায শেষ করতেন- নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের যুগে ছিল।” ইবনে আব্বাস বলেন, আমি তাদের নামায শেষ হওয়া জানতে পারতাম, যখন তা শুনতে পেতাম”। [বুখারী, আযান অধ্যায়, নং ৮৪১]

ইমাম নবভী বলেন, “এটা কতিপয় সালাফের মতের পক্ষে দলিল, যারা বলেছেন, ফরয নামায শেষে উচ্চস্বরে তাকবীর ও যিকর করা মুস্তাহাব। মুতাআখ্খেরীন (পরবর্তী যুগের আলেমগণ) এর মধ্যে ইবনে হাযম মুস্তাহাব বলেছেন। ইবনে বাত্তাল সহ অন্যরা নকল করেছেন যে, অনুসৃত আসহাবে মাযহাব এবং অন্যরা ঐক্যমতানুযায়ী উচ্চস্বরে তাকবীর ও যিকর মুস্তাহাব মনে করেন না”। [শারহু মুসলিম, ৩/৮৬]

শাইখ আব্দুল আযীয বিন বায রাহ. ইবনে আব্বাস রা. এর এই হাদিস টি সম্পর্কে বলেন, “এই সহীহ হাদিস টি এবং এই অর্থের ইবনুয যুবাইর এবং মুগীরাহ বিন শু’বা সহ অন্যান্য হাদিস প্রমাণ করে যে, ফরয নামায শেষে এমন ভাবে উচ্চস্বরে যিকর করা বৈধ, যেন মসজিদের দরজার নিকট এবং মসজিদের আশেপাশে অবস্থানরত লোকেরা নামায শেষ হওয়া জানতে পারে”। [মাজমূউ ফাতাওয়া, ইবনে বায, ১১/২০৬]

◈ পর্যালোচনা নং (৪): আলোচ্য হাদিসে তাকবীর অর্থ আল্লাহু আকবার নয়; বরং এর অর্থ যিকর। “আমি তাকবীরের মাধ্যমে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর নামায শেষ হওয়া জানতে পারতাম।” অর্থাৎ যিকরের মাধ্যমে।

উপরোক্ত অনুচ্ছেদে ইমাম বুখারী ও মুসলিম স্বয়ং ইবনে আব্বাস রা. থেকে একটি অন্য আসার বর্ণনা করেছেন, যা সেই তাকবীর শোনার ব্যাখ্যা দেয়। ইবনে আব্বাস রা. বলেন, “আমি এ থেকে তাদের শেষ করা জানতে পারতাম, যখন তা শুনতাম”। [বুখারী, নং ৮৪১, মুসলিম নং ১২২]

উপরোক্ত বাক্যের ব্যাখ্যায় ইবনে হাজার বলেন, “অর্থ হচ্ছে, আমি যিকর শোনার মাধ্যমে তাদের (নামায) শেষ হওয়া জানতে পারতাম”। [ফাতহুল বারী, ২/৪২১]

কিরমানী বলেন, (তাকবীরের মাধ্যমে) অর্থাৎ আল্লাহর যিকরের মাধ্যমে। এ বক্তব্য আয়নী উমদাতুল ক্বারীতে উল্লেখ করেছেন। [৬/১২৬]

তাই ইবনে আব্বাস রা. এর উপরোল্লিখিত হাদিসে তাঁর উক্তি “আমি তাকবীরের মাধ্যমে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর নামায শেষ হওয়া জানতে পারতাম” অর্থ তাদের যিকর শুনে বুঝতে পারতাম যে, তাদের নামায সমাপ্ত হয়েছে। তবে তিনি এখানে যিকরকে যিকর না বলে তাকবীর বলেছেন। এমন বলাটা অসঙ্গত নয়; কারণ আরবি বালাগাত তথা অলংকার শাস্ত্রে এর নজীর রয়েছে। এমন করাকে বলা হয়, জুয বলে কুল মুরাদ নেওয়া। অর্থাৎ কোনো কিছুর অংশ উল্লেখ করে তার সম্পূর্ণটাই উদ্দেশ্য করা। আর এর পিছনে কারণ হচ্ছে, যেহেতু সেই সব যিকরেরর মধ্যে তাকবীরও রয়েছে তাই হয়তো তিনি তাকবীর বলে যিকরকেই বুঝাতে চেয়েছেন। যেমনটি ইবনে হাজার রাহ. ব্যাখ্যায় উল্লেখ হয়েছে।

হয়তো অনেকে প্রশ্ন তুলতে পারেন যে, এমন অর্থ নেওয়া হাদিসের অপব্যাখ্যা নয় কি? আমি বলবো না, এটা অপব্যাখ্যা নয়। কারণ অপব্যাখ্যা তখন হত, যখন হাদিসটির শব্দকে নিজ অর্থে নেওয়া সম্ভব হত। এখানে হাদিসটিকে আসল অর্থে নেয়া অসম্ভব। কারণ; নামায শেষ হয় ঐক্যমতানুসারে সালামের মাধ্যমে কিন্তু তিনি রা. বলছেন: আমি জানতে পারতাম তাকবীরের মাধ্যমে। তাই উপরোক্ত ব্যাখ্যা আসলে কোনো অপব্যাখ্যা নয়; বরং দলিলের আলোকে সঠিক ব্যাখ্যা। এমন হলে এটা প্রমাণিত হয় না যে, সালামের পর প্রথমে একবার তাকবীর দিতে হবে। কারণ এই তাকবীরের অর্থ আল্লাহু আকবার বলা নয় বরং সাধারণ যিকর।

◈ পর্যালোচনা নং (৫): ইবনে আব্বাস রা. এর এই বর্ণনা অস্পষ্ট, অন্যান্য স্পষ্ট বর্ণনায় সালামের পর তিন বার আস্তাগফিরুল্লাহ বলার কথা এসেছে:

আমাদের এটা স্বীকার করতে দ্বিধা হতে পারে না যে, ইবনে আব্বাস রা. এর বর্ণনায় যেই তাকবীরের কথা এসেছে তা অস্পষ্ট তথা মুহতামিল শব্দ। অর্থাৎ সেটা কোন্ তাকবীর তা স্পষ্ট নয়। সুবহানাল্লাহ, আল্ হামদুলিল্লাহ এবং আল্লাহু আকবারের তাকবীর, না সালামের পর একটি স্বতন্ত্র তাকবীর না নামাযের এক অংশ শেষ করে দ্বিতীয় অংশে যাওয়ার তাকবীর? তবে সালামের পর তিন বার আস্তাগফিরুল্লাহ বলার বর্ণনাটি স্পষ্ট। ফিকহী মূলনীতিতে সাব্যস্ত যে, “দুটি দলিলের মধ্যে যদি একটি অপরটির বিপরীত হয় আর একটি অস্পষ্ট হয় কিংবা তাতে একাধিক অর্থের সম্ভাবনা থাকে আর অন্যটি স্পষ্ট হয় এবং তাতে একাধিক অর্থের সম্ভাবনা না থাকে, তাহলে স্পষ্ট দলিল (স্বরীহ নস্স) অগ্রাধিকার পায়।” এই মূলনীতির আধারে আমরা সহজে বুঝতে সক্ষম যে, সালামের পর আল্লাহু আকবার বলার বর্ণনাটি অস্পষ্ট তথা একাধিক অর্থে সম্ভাব্য কিন্তু সালামের পর তিন বার আস্তাগফিরুল্লাহ বলার দলিলটি স্পষ্ট। তাই আস্তাগফিরুল্লাহ বলাই নির্ধারিত হবে। সহজ ভাবে বলা যেতে পারে, সালাম ফিরানোর পর আল্লাহু আকবার বলা অপেক্ষা আস্তাগফিরুল্লাহ বলার বর্ণনাটি বেশী স্বরীহ বা স্পষ্ট। তাছাড়া ইবনে আব্বাস রা. এর আলোচ্য বর্ণনাটি ছাড়া অন্য বর্ণনায় আস্তাগফিরুল্লাহ বলার বিবরণ এসেছে। তাই আস্তাগফিরুল্লাহ পড়া প্রাধান্য পাবে। নিম্নে বর্ণনাটি প্রদত্ত হল:

عن ثوبان قال: كان رسول الله صلى الله عليه و سلم إذا انْصرفَ مِنْ صلاتِه استغْفَرَ ثلاثاً و قال: ” اللهمَّ أنْتَ السلامُ و منْكَ السلامُ، و تباركتَ ذا الجَلالِ والإكْرامِ”

সাওবান রা. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম যখন তাঁর নামায থেকে ফিরতেন, তখন তিন বার ইস্তিগফার করতেন এবং বলতেন: “আল্লাহুম্মা আন্তাস্ সালামু ওয়া মিনকাস সালামু, ওয়া তাবারাকতা ইয়া যাল্ জালালি ওযাল্ ইকরাম”। [মুসলিম, অধ্যায়ঃ মসজিদ ও নামাযের স্থান, নং (৫৯১) আবু দাউদ, সালাত অধ্যায়, নং (১৫১৩), তিরমিযী, সালাত অধ্যায়, নং (৩০০), ইবনে মাজাহ, নং (৯২৮)]

ইমাম নবভী বলেন, “যখন তিনি তাঁর নামায থেকে ফিরতেন…।” কথাটির অর্থ যখন তিনি সালাম ফিরাতেন। [শারহু মুসলিম, ৩/৯২]

নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সালাম ফিরানোর পরেই যে এই ইস্তিগফার করতেন, তা বিভিন্ন মুহাদ্দেসীনদের অনুচ্ছেদ দ্বারা আরো স্পষ্ট হয়।
-উক্ত বর্ণনাটির জন্য ইমাম আবু দাউদের অনুচ্ছেদ শিরোনাম হচ্ছে, সালাম ফিরানোর পর মানুষ কী বলবে?
-ইমাম তিরমিযীর অনুচ্ছেদ শিরোনাম হচ্ছে, নামাযে সালামের পর যা বলবে।
-ইমাম ইবনে মাজার অনুচ্ছেদটি হচ্ছে, সালামের পর যা বলতে হয়।
অতঃপর তাঁরা সকলে উপরোক্ত সাওবান রা. এর বর্ণনাটি উল্লেখ করেছেন, যা দ্বারা মুহাদ্দিসগণের ইস্তিদলাল বুঝা যায় যে, সালামের পর প্রথমে তিনবার আস্তাগফিরুল্লাহ বলতে হবে; একবার আল্লাহু আকবার নয়।

◈ পর্যালোচনা নং (৬): যদি হাদিসের বাহ্যিক শব্দ তাকবীর এর অর্থ আল্লাহু আকবার গ্রহণ করা হয়, তাহলে সেই তাকবীর কি একটি স্বতন্ত্র ভিন্ন তাকবীর না সালাম শেষে সুবহানাল্লাহ, আলহামদুলিল্লাহ এবং আল্লাহু আকবার এর তাকবীর?

উপরে বর্ণিত প্রমাণ ও সালফে সালেহীনদের ব্যাখ্যার আলোকে আমরা এ সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে পারি যে, সালামের পর একবার আল্লাহু আকবার নয়; বরং তিন বার আসতাগফিরুল্লাহ পড়তে হবে। কিন্তু কেউ যদি ইবনে আব্বাস রা. এর বর্ণনার বাহ্যিক শব্দের ভিত্তিতে তার উপর আমল করতে চায়, তাহলে সে সালাম ফিরানোর পর তাকবীরের মাধ্যমে যিকর শুরু করতে পারে কিন্তু তা হবে সুবহানাল্লাহ, আলহামদুলিল্লাহ এবং আল্লাহু আকবারের তাকবীর, যা ৩৩ বার কিংবা অন্য বর্ণনানুযায়ী ১০ বার। একটি মাত্র তাকবীর নয়। সালাম শেষে একটি স্বতন্ত্র তাকবীরের কথা ইবনে আব্বাস রা. এর হাদিসের শব্দ দ্বারা বুঝা যায় আর না আবার সেই হাদিসের ব্যাখ্যায় কোনো প্রসিদ্ধ ব্যাখ্যাকারীও তা বলেন নি। এমনকি সালফে সালেহীনের কেউই একটি ভিন্ন তাকবীরের কথা বলেন নি। হ্যাঁ, তবে উক্ত হাদিস “তাকবীরের মাধ্যমে নামায শেষ হওয়া জানতে পারতাম” এর ব্যাখ্যায় এমন কিছু ইঙ্গিত পাওয়া যায়, যা দ্বারা অনুমান করা যেতে পারে যে, সালাফদের কেউ কেউ তাকবীরের মাধ্যমে যিকর শুরু করতেন। আর তা হত, সুবহানাল্লাহ, আল্ হামদুলিল্লাহর তাকবীর; কোনো স্বতন্ত্র তাকবীর নয়।

“বিত্ তাকবীর” (তাকবীরের মাধ্যমে) এ কথার ব্যাখ্যায় ইবনে হাজার রাহ. উল্লেখ করেছেন: “মনে হয়, তারা নামায শেষে সুবহানাল্লাহ আলহামদুলিল্লাহ এর পূর্বে আল্লাহুআকবার দ্বারা শুরু করতেন”। [ফাতহুলবারী, ২/৪২১]

সউদী স্থায়ী উলামা পরিষদকে জিজ্ঞাসা করা হয়, উক্ত তাকবীর বলতে কী বুঝায়? [ফতোয়া নম্বর ১৮১৪৭ এর চতুর্থ প্রশ্ন] তাঁরা উত্তরে বলেন:

সেই হাদিসে উল্লেখিত তাকবীরের অর্থ হচ্ছে, নামাযের পশ্চাতে ৩৩ বার (সুবহানাল্লাহ, আল্ হামদুলিল্লাহ এবং আল্লাহু আকবার) বলা। এটা এ সম্বন্ধীয় হাদিস সমূহের মধ্যে সমন্বয় স্বরূপ। [ফাতাওয়াল লাজনা আদ দায়িমাহ, ৫/৪২০, মাকতাবা শামেলার নাম্বার অনুযায়ী]

শাইখ ইবনে উসায়মীন রহ. আলোচ্য হাদিসে “বিত্ তাকবীর” (তাকবীরের মাধ্যমে) বলতে কী বুঝায়? এর ব্যাখ্যায় বলেন, অর্থাৎ সেই তাকবীরের মাধ্যমে যা যিকরের সাথে হয়; কারণ সুবহানাল্লাহ, আলহামদুলিল্লাহ এবং আল্লাহু আকবার যিকরের অন্তর্ভুক্ত। [ফাতাওয়া নুরুন আলাদ্ দারব, ৮/২, মাকতাবা শামেলার নাম্বার অনুযায়ী]

যেহেতু নামাযের পশ্চাতে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাসবীহ, তাহমীদ ও তাকবীরের আদেশ দিয়েছেন, তাই নামায শেষ হলেই তা করা বৈধ। অন্য দিকে কিছু এমন বর্ণনাও পাওয়া যায়, যাতে তাসবীহ এর পূর্বে তাকবীরের উল্লেখ এসেছে। তাই তাকবীর দ্বারা যিকর শুরু করা বৈধ কিন্তু উত্তম নয়।

নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, “তুসাব্বিহূনা ওয়া তাহমাদূনা ওয়া তুকাব্বিরূনা খালফা কুল্লি স্বালাতিন সালাসাঁও ও সালাসীনা”। অর্থ: “তোমরা প্রত্যেক নামায শেষে ৩৩ বার সুবহানাল্লাহ, আলহামদুলিল্লাহ এবং আল্লাহু আকবার বলবে”। [বুখারী, নং ৮৪৩]

ইবনে হাজার রাহ. বলেন, “বেশীরভাগ হাদিসে আলহামদুলিল্লাহ এর পূর্বে সুবহানাল্লাহ এসেছে এবং আল্লাহু আকবার পরে এসেছে। তবে ইবনে আজলান এর বর্ণনায় বিশেষ করে আল হামদুলিল্লাহের পূর্বে আল্লাহু আকবার এসেছে এবং তাতে আবু সালিহ এর উক্তি রয়েছে, তুমি বলবে: “আল্লাহু আকবার, সুবহানাল্লাহ এবং আল হামদুলিল্লাহ”। অনুরূপ উম্মুল হাকাম থেকে আবু দাউদে বর্ণিত হয়েছে (২৯৮৭)। এবং তাতে আবু হুরাইরা থেকে বর্ণিত, “তোমরা তাকবীর, হামদ এবং তাসবীহ পাঠ করবে”। ইবনে উমরের হাদিসেও অনুরূপ এসেছে।

তিনি আরও বলেন, এই মতভেদ প্রমাণ করে যে, উক্ত যিকরে ধারাবাহিকতা জরুরি নয়। আর এই মতের সমর্থনে রয়েছে বাকিয়াতুস্ স্বালিহাতের হাদিস “যার দ্বারাই শুরু কর না কেন তাতে কোনো ক্ষতি নেই”। [ফাতহুল বারী, ২/৪২৪/কাশফুল্ লিসাম, সাফারীনী, ৩/১০০]

উক্ত ব্যাখ্যা দ্বারাও বুঝা যায়, সুবহানাল্লাহ এবং আল্ হামদুলিল্লাহ এর পূর্বে আল্লাহু আকবার দ্বারা যিকর শুরু করা বৈধ। তবে উত্তম হচ্ছে প্রথমে তাসবীহ, তার পর তাহমীদ, অতঃপর তাকবীর”। [ফাতহুলবারী, ২/৪২৪]

অতএব বুঝা গেল, ইবনে আব্বাস রা. এর হাদিসে উল্লেখিত তাকবীর কোনো স্বতন্ত্র তাকবীর নয়; বরং তা তাসবীহ ও তাহমীদের তাকবীর। তাই কেউ ফরয সলাতান্তে তাকবীরের মাধ্যমে যিকর করতে চাইলে তো করতে পারে কিন্তু তা একটি আলাদা একবার তাকবীর হবে না; বরং তা হবে ৩৩ বার কিংবা ১০ বার, যা যিকরের অন্তর্ভুক্ত।

বিগত ও বর্তমান যুগের ১০ জন বিশিষ্ট ইসালামি লেখক, গবেষক ও উলামার উক্তি, যারা নামাযান্তে ৩ বার আস্তাগফিরুল্লাহ বলার পক্ষে মন্তব্য ও ফতোয়া দিয়েছেন:

✪ ১-ইমাম নওয়াভী রহ. (মৃত্যু: ৬৭৬ হি.) বলেন, “কাযী আবুত ত্বাইয়েব বলেছেন, “এই সকল যিকরের মধ্যে ইস্তেগফার দিয়ে শুরু করা মুস্তাহাব। অতঃপর তিনি সাওবান রা. এর হাদিস উল্লেখ করেন।” [কিতাবুল্ মাজমু, ৩/৪৬৮]

✪ ২-ইবনে তায়মিয়াহ রহ. ( মৃত্যু: ৭২৮ হি. ) বলেন, “সহীতে উল্লেখ হয়েছে, তিনি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মুখ ফিরে বসার পূর্বে তিন বার আস্তাগফিরুল্লাহ পড়তেন এবং বলতেন আল্লাহুম্মা আনতাস্ সালামু ওয়া মিনকাস্ সালামু তাবারাকতা ইয়া যাল জালালি ওয়াল ইকরাম।” [মাজমুউ ফাতাওয়া, ২২/৪৯২-৪৯৩]

✪ ৩-ইবনুল ক্বায়্যিম রহ. (মৃত্যু: ৭৫১ হি.) বলেন, “তিনি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম যখন সালাম ফিরাতেন, তিন বার আস্তাগফিরুল্লাহ বলতেন। অতঃপর বলতেন: আল্লাহুম্মা আন্তাস্ সালামু .. ..।” [যাদুল মাআদ, ১/২৯৫]

✪ ৪-ইবনুন নাজ্জার রহ. (মৃত্যু; ৯৭২হি.) বলেন, “অতঃপর সুন্নত হল, তিন বার ইস্তিগফার করা এবং বলা আল্লাহুম্মা আন্তাস সালামু ….।” [মুনতাহাল ইরাদাত, ১/২২]

✪ ৫-রামলী রহ. (মৃত্যৃ: ১০০৪ হি.) বলেন, “তিনি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম যখন নামায শেষ করতেন, তিনবার ইস্তিগফার করতেন।” [নিহাইয়াতুল মুহতাজ, ১/৫২৯]

✪ ৬-বহূতী রহ. (মৃত্যু: ১০৫১হি.) বলেন, “অতঃপর তিন বার আস্তাগফিরুল্লাহ বলবে। (তারপর) আল্লাহুম্মা আনতাস সালামু ….।” [কাশ্শাফুল কান্না, ১/৪৩৪]

✪ ৭-শাইখ ইবনে বায রহ. বলেন, ‘অতঃপর আমি আমার ভাইসকলকে এই উপদেশ দিতে আনন্দ বোধ করছি যে, সুন্নত হল: মুসলিম ব্যক্তি প্রত্যেক ফরয সালাতান্তে ইমাম হোক কিংবা মুক্তাদি হোক কিংবা একাকী নামায আদায়কারী হোক- সে যেন বলে, আস্তাগফিরুল্লাহ তিন বার। আল্লাহুম্মা আন্তাস সালামু ওয়া মিনকাস্ সালামু তাবারাকতা ইয়া যাল জালালি ওয়াল ইকরাম। অতঃপর ইমাম হলে যেন লোকদের দিকে মুখ করে ফিরে বসে।’ [মাজমুউ ফাতাওয়া ইবনে বায, ১১/১৮৮]

✪ ৮-শাইখ বকর আবু যাইদ রাহ. তাঁর তাসহীহুদ্ দুআ নামক গবেষণাধর্মী গ্রন্থে সালাত শেষে বৈধ যিকর সমূহ শিরোনামে যিকরগুলির ধারাবাহিকতা উল্লেখ করার সময় প্রথম নম্বরে বলেন, “ইস্তিগফার করা, আর এর প্রমাণিত নিয়ম হচ্ছে “আস্তাগফিরুল্লাহ” তিন বার।” [তাসহীহুদ দুয়া, ১/৪৩০]

✪ ৯-শাইখ সালেহ বিন ফাউযান (হাফেযাহুল্লাহ) বলেন, “যখন সালাম শেষ হবে বলবে, আস্তাগফিরুল্লাহ তিন বার। আল্লাহুম্মা ইন্নাকা আন্তাস সালাম ওয়া মিনকাস সালামু তাবারাকতা ইয়া যাল্ জালালি ওয়াল ইকরাম। অতঃপর প্রমাণিত যিকর করবে।” [আল মুলাখ্খাস আল ফিকহী, ১/৭০]

✪ ১১-সউদি স্থায়ী উলামা পরিষদ তাদের ফতোয়ায় বলেন, “ফরয সালাতের সালাম শেষে মুসল্লি তিন বার ইস্তিগফার করবে এবং বলবে আল্লাহুম্মা আনতাস সালামু ওয়া মিনকাস সালামু তাবারাকতা ইয়া যাল জালালি ওয়াল ইকরাম। তারপর বলবে: লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াহ্ দাহূ লা শারীকা লাহূ লাহুল‌ মুলকু ওয়ালাহুল হামদু ওয়াহুয়া আলা কুল্লি শায়ইন ক্বাদীর। লা হাওলা ওয়ালা কুও আতা ইল্লা বিল্লাহ। লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়ালা না’বুদু ইল্লা ইয়্যাহু..শেষ পর্যন্ত। আল্লাহুম্মা লা মানিয়া লিমা আ’ত্বাইতা ওয়ালা মু’ত্বিয়া লিমা মানা’তা ওয়ালা ইয়ানফাউ যাল জাদ্দি মিনকাল জাদ্দ। অতঃপর সুবহানাল্লাহ, আলহামদুলিল্লাহ ও আল্লাহুআকবার ৩৩ বার। অতঃপর ১০০ পূরণে লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু …”।[ফাতাওয়াল লাজনা আদ দাইমাহ, ৭১০২-১০৩]

আশা করি, সম্মানিত পাঠকদের নিকট বিষয়টি স্পষ্ট হয়েছে। ওয়া সাল্লাল্লাহু আলা নাবিয়্যিনা তাসলীমান মাযীদা।।