কোরআন ও সহীহ সুন্নাহ ভিত্তিক প্রশ্নোত্তর প্রচার করাই হল এই ওয়েবসাইটের মূল উদ্দেশ্য।।

সন্তান লাভের উদ্দেশ্যে ৪০ দিন আল্লাহ আআলার ‘আল আওয়াল’ নাম যপা এবং রোগ-ব্যাধির জন্য ৪১ বার সুরা ফাতিহা পড়ে পানিতে ফুঁ দিয়ে তা পান করা

প্রশ্ন: একাধারে ৪০ দিন ৪০ বার করে মহান আল্লাহর নাম ‘আল আওয়াল’ যিকির করলে সন্তান লাভের আশা পূরণ হয় এবং ৪১ বার সূরা ফাতিহা পাঠ করে পানিতে ফুঁ দিয়ে পান করলে রোগ-ব্যাধি ভালো হয়-এটা কি সঠিক?

উত্তর:

🔰 “একাধারে ৪০ দিন ৪০ বার করে ‘আল আওয়াল’ পাঠ করলে সন্তান লাভের আশা পূর্ণ হয়”-আমাদের জানামতে এ মর্মে কোন হাদিস বর্ণিত হয় নি। সুতরাং হাদিস ছাড়া এমন কথা গ্রহণযোগ্য নয়।

তবে সন্তান লাভের জন্য প্রয়োজনীয় ডাক্তারের পরামর্শ নেয়ার পাশাপাশি বেশি পরিমাণে ইস্তিগফার করা যেতে পারে এবং আল্লাহর নিকট আশা পূরণের জন্য দুআ করা করতে হবে। তাহলে আল্লাহ যদি ইচ্ছে করেন তাহলে অবশ্যই তিনি মনের বাসনা পূর্ণ করবেন।

🔰 অনুরূপভাবে “৪১ বার সূরা ফাতিহা পড়ে পানিতে ফুঁ দিয়ে পান করলে রোগ-ব্যাধি ভালো হয়” এ মর্মেও কোন হাদিস আছে বলে জানা নাই।
তবে সাধারণভাবে রোগীর গায়ে সুরা ফাতিহা, ইখলাস, ফালাক, নাস ও হাদিসে বর্ণিত দুআ পড়ে ফুঁ দেয়ার মাধ্যমে চিকিৎসা করা হাদিস দ্বারা সু প্রমাণিত।
কিন্তু আমাদের জানামতে কুরআন-সুন্নায় এক চল্লিশ বার সূরা ফাতিহা পড়ার কথা আসে নি। এ নির্দিষ্ট সংখ্যায় যদি কোনও ফায়দা থাকত তাহলে রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম অবশ্যই তার উম্মতকে নির্দেশনা দিয়ে যেতেন-যেমনটি বিভিন্ন ক্ষেত্রে যিকিরের সংখ্যা নির্ধারণ করে দিয়েছেন। 
কথিত বুযুর্গ ও পীর-ফকিরের অভিজ্ঞতার আলোকেও যিকির বা রুকিয়ার জন্য সূরা বা দুআর সংখ্যা নির্দিষ্ট করা বৈধ নয়। হাদিসে যা অনির্দিষ্ট রাখা হয়েছে তা দলীল বহির্ভূতভাবে নির্দিষ্ট করার সুযোগ নাই। অন্যথায় তা বিদআত হিসেবে পরিগণিত হবে।
আল্লাহু আলাম।
▬▬▬◄❖►▬▬▬
উত্তর প্রদানে: 
আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল
(লিসান্স, মদীনা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়)
দাঈ, জুবাইল দাওয়াহ এন্ড গাইডেন্স সেন্টার, সউদী আরব।

Share This Post