কোরআন ও সহীহ সুন্নাহ ভিত্তিক প্রশ্নোত্তর প্রচার করাই হল এই ওয়েবসাইটের মূল উদ্দেশ্য।।

মা আয়েশা রা. এর উপাধী সমূহ

প্রশ্ন: আল্লাহর রাসূল-সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-মা-জাননী আয়েশা সিদ্দিকা রা. কে মহব্বতের ছলে কোন কোন নাম/উপাধী ধরে ডাকতেন?
উত্তর:
মা আয়েশা রা. কে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম অত্যন্ত ভালবাসতেন। আর ভালবাসা ও আদরের বর্হিপ্রকাশ হিসেবে তিনি তাকে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন উপাধীতে ডাকতেন।
হাদিসে এমন মোট ৬টি নাম বা উপাধী পাওয়া যায়। নিম্নে সেগুলো তুলে ধরা হল (রেফারেন্স সহ) :
✪ ১) আয়েশ (আয়শাহ عائشة থেকে শেষ অক্ষর বিলুপ্ত করে عائش):
✪ ২) হুমায়রা
✪ ৩) ইবনাতুস সিদ্দীক (সিদ্দিক এর মেয়ে)।
✪ ৪) ইবনাতু আবি বকর (আবু বকরের মেয়ে)।
✪ ৫) মুওয়াফফাকা (আল্লাহর তওফিক প্রাপ্তা)।
✪ ৬) উম্মে আব্দুল্লাহ।

এছাড়াও সাহাবী-তাবেঈন এবং তৎপবর্তীতে মুহাদ্দিসীন ও আলেম-ওলামাগণ তাঁকে নানা উপাধীতে ভূষিত করেছেন। যেমন:

ক. উম্মুল মুমনীন (মুমিনদের মা)
খ. সিদ্দিকা বিনতে সিদ্দীক
গ. হাবীবা বিনতে হাবীব
ঘ. হাবীবাতু রাসূলিল্লাহ
ঙ. আতীকা বিনতে আতীক
চ. আল মুবাররাআহ (আল্লাহর পক্ষ পবিত্র ঘোষিত)
ছ. আল বারীআহ (পূতপবিত্র) ইত্যাদি উপাধীতে ভূষিত করা হয়েছে। (*)
———————————–
নিম্নে এ সংক্রান্ত হাদিসগুলোর আরবী মতন (টেক্স) তুলো দেয়া হল:
১) আয়েশ: (আয়শা থেকে শেষ অক্ষর বিলুপ্ত করে):
في الصحيحين عن عائشة، قالت: قال رسول الله صلى الله عليه وسلم: «يا عائش! هذا جبريل يُقرئكِ السلام». قلت وعليك السلام ورحمة الله وبركاته”
২) হুমায়রা:
عائشة، زوج النبي صلى الله عليه وسلم قالت: دخل الحبشة المسجد يلعبون، فقال لي: «يا حميراء! أتحبين أن تنظري إليهم»، فقلت: نعم، فقام بالباب وجئته فوضعت ذقني على عاتقه، فأسندت وجهي إلى خده
৩) ইবনাতুস সিদ্দীক (সিদ্দিক এর মেয়ে):
ما روته عائشة أم المؤمنين رضي الله عنها قالت: “قلت يا رسول الله: {وَالَّذِينَ يُؤْتُونَ مَا آتَوْا وَقُلُوبُهُمْ وَجِلَةٌ} [المؤمنون من الآية:60]؛ هو الذي يزني ويشرب الخمر ويسرق؟ قال: «لا يا ابنة الصديق: ولكنه الرجل يصوم ويصلي ويتصدق، ويخاف أن لا يُقبل منه» (شرح العقيدة الطحاوية؛ تخريج الشيخ ناصر الدين الألباني، المكتب الإسلامي، بيروت، ص: [365]).
৪) ইবনাতু আবি বকর (আবু বকরের মেয়ে):
قال رسول الله صلى الله عليه وسلم وتبسَّم: «إنها ابنة أبي بكر»” (رواه مسلم في صحيحه، ج: [4/1891]).
৫) মুওয়াফফাকা (আল্লাহর তাওফিক প্রাপ্তা)
. روى أن رسول الله صلى الله عليه وسلم قال: «من كان له فرطان من أمتي أدخله الله بهما الجنة»، فقالت عائشة: فمن كان له فرط من أمتك؟ قال: «ومن كان له فرط يا موفقة» (رواه الترمذي في جامعه، ج: [3/376]، وقال عنه: “حسن غريب”، وقد ضعّفه الشيخ ناصر الألباني في صحيح وضعيف الجامع الصغير، برقم: [5801]).
অবশ্য শাইখ আলবানী এ হাদিসটিকে যইফ বলেছেন।
৬) উম্মে আব্দুল্লাহ:
روت عائشة رضي الله عنها قولها لرسول الله صلى الله عليه وسلم: “أم كل صواحبها لهن كنى، فقال لها رسول الله صلى الله عليه وسلم: «فاكتني بابنكِ عبد الله»[4] يعني ابن أختها فكانت تُكنَّى بأم عبد الله” (سنن أبي داود، دار الفكر بيروت لبنان، ج: [4/293]).
في رواية ثانية عن عائشة رضي الله عنها قالت: “لمّا وُلِدَ عبد الله بن الزبير أتيتُ به النبي صلى الله عليه وسلم فتفل في فيه، فكان أول شيء دخل جوه، وقال: «هو عبد الله وأنتِ أم عبد الله»، فما زلت أكنى بها وما ولدت قط” (صحيح ابن حبان، مؤسسة الرسالة، بيروت، عام 1193م، ج: [16/55]).

(*) كان مسروق إذا حدّث عن عائشة قال “حدثتني الصديقة بنت الصديق؛ حبيبة حبيب الله؛ المبرّأة في كتاب الله” الجامع للخطيب البغدادي وصححه ابن القيم
المحدث:شعيب الأرناؤوط المصدر:تخريج المسند الجزء أو الصفحة:26044 حكم المحدث:صحيح
وكان مسروق إذا روى عنها يقول: حدَّثتني الصديقة بِنْت الصديق، البريئة المبرأة
▬▬▬ ◈❥◈▬▬▬
উত্তর প্রদানে:
আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল
(লিসান্স, মদিনা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়)।
দাঈ, জুবাইল দাওয়াহ এন্ড গাইডেন্স সেন্টার, সউদী আরব।

Share This Post