মাদখালি মতবাদ কী

মাদখালি মতবাদ কী? শাইখ রবি বিন হাদি আল মাদখালি কে? (দূর হোক ভ্রান্তি-বন্ধ হোক প্রোপাগান্ডা)

❑ শাইখ রবি বিন হাদি আল মাদখালি-এর সংক্ষিপ্ত বায়োগ্রাফি:

শাইখ ডক্টর রবি বিন হাদি বিন মুহাম্মদ উমাইর আল-মাদখালি (হাফিযাহুল্লাহ) বর্তমান সময়ের অত্যন্ত বিচক্ষণ, প্রতিভাবান এবং সত্য ও ন্যায়ের পথে আপোষহীন একজন সালাফি আলেম। আকিদা ও হাদিসের পণ্ডিত এই আলেম সালাফ তথা পূর্বসূরিদের আকিদা ও মানহাজের অনুসরণ এবং বিদআত বর্জনের দিকে আহ্বানের ক্ষেত্রে যথেষ্ট পরিচিতি লাভ করেন। তাকে বর্তমান বিশ্বে ইসলামের নামে গজিয়ে উঠা বিভিন্ন দল-উপদল, ফিরকা ও মতবাদ বিশেষজ্ঞ হিসেবে বিবেচনা করা হয়।
তিনি ১৯৩৩ খৃষ্টাব্দে সৌদি আরবের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের শেষ প্রান্তে লোহিত সাগরের তীরবর্তী এলাকা জিজানের সামেতা শহরের অদূরে আল-জারাদিয়া নামক একটি ছোট গ্রামে মাদাখেলা বংশে জন্মগ্রহণ করেন এবং বর্তমানে তিনি বাকি জীবন মদিনা মুনাওয়ারায় কাটানোর উদ্দেশ্যে সেখানেই বসবাস করছেন। (আল্লাহ তাআলা শাইখকে আল্লাহর আনুগত্যের উপরে দীর্ঘ জীবন দান করুন। আমিন)

❑ শিক্ষার পথে অভিযাত্রা:

তিনি জিজানের সামেতা শহরে অবস্থিত ইলমি ইন্সটিটিউট থেকে পড়াশোনা শেষ করার পর রাজধানী রিয়াদের শরিয়া কলেজে ভর্তি হোন। অত:পর মদিনা ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হলে তিনি সেখানে ভর্তি হোন এবং সেখানে চার বছরে পড়াশোনা করার পর এক্সিলেন্ট (মুমতাজ) রেজাল্ট সহকারে অনার্স (১৯৬৪ খৃ.) সমাপ্ত করেন। অতঃপর জেদ্দার ঐতিহ্যবাহী কিং আব্দুল আজিজ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স (১৯৭৬ খৃ.) এবং একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডক্টরেট ডিগ্রি অর্জন করেন (১৯৭৯ খৃ.)।

অত:পর মদিনা ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা শুরু করেন এবং সময়ের ব্যবধানে তিনি সেখানে উচ্চ শিক্ষা অনুষদের আস সুন্নাহ বিভাগের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

▪️মদিনা বিশ্ববিদ্যালয়ে তাঁর শিক্ষকদের মধ্যে বিশ্ব বরেণ্য কয়েকজন আলেম হলেন:

১. আল্লামা শায়খ আব্দুল আজিজ বিন বায রাহ.
২. আল্লামা শায়খ মুহাম্মদ নাসির উদ্দিন আলবানি রাহ.
৩. আল্লামা শায়খ আব্দুল মুহসিন আল আব্বাদ (হাফিযাহুল্লাহ)
৪. আল্লামা শায়খ মুহাম্মদ আমিন শানকিতি রাহ. প্রমুখ।

❑ ‘মাদখালি’ মতবাদ কী?

ডক্টর আল্লামা শাইখ রবি বিন হাদি আল মাদখালিকে উদ্দেশ্য করে বিদআতি গোষ্ঠী তাঁর নামে ‘মাদখালিজম’ নামে একটি ভ্রান্ত মতবাদ উদ্ভাবনের অভিযোগ উত্থাপন করে থাকে এবং সালাফি ও আহলে হাদিসদেরকে অনেকেই মূর্খতা ও বিদ্বেষ বশত: ‘মাদখালি’ বলে উপহাস করে থাকে। বর্তমান সময়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় এই টার্মটা বিশেষভাবে লক্ষণীয়। অথচ শাইখ রবি বিন হাদি আল মাদখালি (হাফিজাহুল্লাহ) আল্লাহর কিতাব ও রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর সুন্নতের অনুসারী, বিশুদ্ধ আকিদার-ধারক ও বাহক এক আপসহীন আলেম। আল্লাহর কিতাব ও রসুলের সুন্নাহর বাইরে তিনি নতুন কোনও মতাবাদ আবিস্কার করেননি।
তবে তাঁর সবচেয়ে বড় অপরাধ (!) হল, তিনি বিভিন্ন দলপূজারী এবং বিদআতি গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে তাঁর ক্ষুরধার লেখনীর মাধ্যমে মিথ্যার উপরে প্রতিষ্ঠিত তাদের রাজপ্রাসাদকে কলমের খোঁচায় গুড়িয়ে দিয়েছেন। শক্ত ভাষায় এদের প্রতিবাদ করেছেন। যে বা যারা সালাফদের আকিদা-মানহাজ থেকে বের হয়ে দ্বীনের মধ্যে নিত্য-নতুন পথ ও পন্থা আবিষ্কার করেছে তিনি তাদের বিরুদ্ধে কলম ধরেছেন-সে যত বড় ও যত প্রসিদ্ধ আলেমই হোক না কেন।

আর সেই কারণেই এই প্রবৃত্তির অনুসারী এবং দল ও ব্যক্তি পূজারীরা শায়খ রবি আল‌ মাদখালিকে নানা মিথ্যা অভিযোগে অভিযুক্ত করে থাকে। ফলে তিনি পৃথিবীর সকল বিদআতি, কবর পূজারী, শিয়া-রাফেজি, খারিজি-জঙ্গি এবং তাদের দোসরদের চক্ষুশূলে পরিণত হয়েছেন।

কিন্তু যুগ শ্রেষ্ঠ আহলুল ইলম, মুহাদ্দিস ও আলেমগণ শাইখ রবির ভূয়সী প্রশংসা করেছেন আল হামদুলিল্লাহ। তাদের মধ্যে অন্যতম হলেন, আল্লামা শায়খ আব্দুল আজিজ বিন বায, আল্লামা শাইখ মুহাম্মদ বিন সালিহ‌ আল উসাইমিন, আল্লামা শাইখ নাসির উদ্দিন আলবানি সহ সমসাময়িক বিজ্ঞ আলেমগণ।

প্রকৃতপক্ষে তাঁর ব্যাপারে বিজ্ঞ আলেমদের প্রশংসা বাণী অনেক বেশি। তবে নিম্নে তাঁর ব্যাপারে আমরা কয়েকজন বিজ্ঞ আলেমের অবস্থান ও প্রশংসা বাণী উপস্থাপন করব ইনশাআল্লাহ।

✪ ১. সৌদি আরবের সাবেক প্রধান মুফতি, যুগের অন্যতম শ্রেষ্ঠ ফকিহ এবং বিশ্ববরেণ্য আলেমে দ্বীন আল্লামা আব্দুল আজিজ বিন বায রাহ. বলেন,

«وإخواننا المشايخ المعروفون في المدينة ليس عندنا فيهم شك، هم أهل العقيدة الطيبة ومن أهل السنة والجماعة مثل الشيخ محمد أمان بن علي، ومثل الشيخ ربيع بن هادي،… كلهم معروفون لدينا بالاستقامة والعلم والعقيدة الطيبة
ولكن دعاة الباطل أهل الصيد في الماء العكر هم الذين يشوشون على الناس ويتكلمون في هذه الأشياء ويقولون المراد كذا وكذا وهذا ليس بجيد، الواجب حمل الكلام على أحسن المحامل»

“আমাদের পরিচিত মদিনার ভ্রাতৃমণ্ডলী ও শায়েখগণের ব্যাপারে আমাদের কাছে সন্দেহ নাই যে, তারা ভালো আকিদার অনুসারী এবং আহলে সুন্নত ওয়াল জামাত-এর অন্তর্ভুক্ত। যেমন: শাইখ মোহাম্মদ আমান বিন আলি, শাইখ রবি বিন হাদি। তারা সকলেই আমাদের নিকট দ্বীনের ওপর দৃঢ়তা, ইলম এবং ভালো আকিদার ধারক-বাহক হিসেবে সুপরিচিত। কিন্তু ঘোলা পানিতে মাছ শিকার কারী এবং বাতিলের দিকে আহবান কারীরাই মানুষের মনে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করে এবং এসব বিষয়ে (বিভ্রান্তিমূলক) কথা বলে। তারা বলে, “(অমুকের কথার) উদ্দেশ্য, এই এই…।” এটা ভালো কাজ নয়। বরং আবশ্যক হচ্ছে, মানুষের কথাকে সবচেয়ে ভালো অর্থে ব্যাখ্যা করা।” [ক্যাসেট: তাওজিহুল বায়ান]

তিনি আরও বলেন,

«الشيخ ربيع من خيرة أهل السنَّة والجماعة، ومعروف أنَّه من أهل السنَّة، ومعروف كتاباته ومقالاته

“শায়খ রবি (বিন হাদি আল মাদখালি) আহলুস সুন্নাহ ওয়াল জামাআহ-এর শ্রেষ্ঠ আলেমদের একজন। তিনি আহলুস সুন্নাহ হিসেবে সুপরিচিত। তার লেখনী ও বিভিন্ন প্রবন্ধ সুপরিচিত।” [ক্যাসেট: শাইখ রবির ব্যাপারে আলেমদের প্রশংসা]

✪ ২. বিংশ শতকের অন্যতম শ্রেষ্ঠ ফকিহ আল্লামা মুহাম্মদ বিন সালেহ আল উসাইমিন রাহ. বলেন,

أما بالنسبة للشيخ ربيع فأنا لا أعلم عنه إلا خيرًا والرجل صاحب سنة وصاحب حديث

“আর শাইখ রবির ব্যাপারে কথা হল, আমি তার ব্যাপারে ভালো ছাড়া অন্য কিছু জানি না। তিনি সুন্নতের অনুসারী এবং মুহাদ্দিস (হাদিস বিশারদ)।” [ক্যাসেট: আল আসইলাতুস সুওয়াইদিয়াহ]

তিনি আরও বলেন,

الشيخ ربيع من علماء السنة، ومن أهل الخير، وعقيدته سليمة، ومنهجه قويم. لكن لما كان يتكلم على بعض الرموز عند بعض الناس من المتأخرين وصموه بهذه العيوب

“শাইখ রাবি হলেন, একজন সুন্নি আলেম এবং ভালো মানুষ। তার আকিদা (বিশ্বাস) নিষ্কলুষ এবং তার মানহাজ (পথ ও পদ্ধতি) সঠিক। কিন্তু যখন তিনি পরবর্তী যুগের কিছু মানুষের অনুসরণীয় বিশেষ কতিপয় ব্যক্তি সম্পর্কে সমালোচনা করলেন তখন তারা এসব দোষত্রুটির মাধ্যমে তাকে কলঙ্কিত করার চেষ্টা করল।” [ক্যাসেট: কাশফুল লিসাম]

✪ ৩. বিংশ শতকের অন্যতম শ্রেষ্ঠ মুহাদ্দিস আল্লামা নাসির উদ্দিন আলবানি রাহ. বলেন,

«إنَّ حامل راية الجرح والتعديل اليوم في العصر الحاضر وبحقٍّ هو أخونا الدكتور ربيع، والذين يردون عليه لا يردون عليه بعلم أبداً، والعلم معه»

“বর্তমান যুগে জারহ ও তাদিল (গ্রহণ বা প্রত্যাখ্যানের উদ্দেশ্যে আলেমদের দোষ-গুণ সংক্রান্ত বিশ্লেষণ)-এর পতাকা বহনকারী হলেন, আমাদের ভাই ডক্টর রবি। যারা তার বিরোধিতা করে তারা কখনোই ইলমের মাধ্যমে তাঁর বিরোধিতা করে না। অথচ সঠিক ইলম রয়েছে তাঁরই নিকট।” [ক্যাসেট: আল মুয়াযানাত-বিদআতুল আসর]

তিনি আরও বলেন,

«فهؤلاء الذين ينتقدون الشيخين -كما ذكرنا- (يعني الشيخين مقبل الوادعي وربيع المدخلي) إما جاهل فيُعلَّم، وإما صاحب هوى فيُستعاذ بالله من شره، ونطلب من الله -عز وجل- إما أن يهديه وإما أن يقصم ظهره»

“ওই সকল লোক যারা এই দুই শাইখের সমালোচনা করে যাদের কথা আমরা উল্লেখ করেছি (অর্থাৎ শায়েখ মুকবিল এবং শাইখ রবিউ আল মাদখালি) তারা হয় জাহেল (অজ্ঞ) যাকে জ্ঞান শেখানো উচিত অথবা প্রবৃত্তির অনুসারী যার অনিষ্ট থেকে আল্লাহর কাছে আশ্রয় চাওয়া উচিৎ। আমরা আল্লাহর কাছে দুআ করি, তিনি যেন তাকে হেদায়েত করেন অথবা তার পিঠ ভেঙ্গে দেন।” [সিলসিলাতুল হুদা ওয়ান নূর, ৮৫১]

✪ ৪. ইয়েমেনের বিশিষ্ট মুহাদ্দিস আল্লামা মুকবিল আল ওয়াদায়ী রাহ. বলেন,

«مِنْ أبصر الناس بالجماعات وبدخن الجماعات في هذا العصر الأخ الشيخ ربيع بن هادي، مَن قال له ربيع بن هادي إنه حزبي فسينكشف لكم بعد أيام إنه حزبي

“বর্তমান যুগে বিভিন্ন দল এবং দলের সমস্যাগুলো সম্পর্কে সবচেয়ে বেশি জ্ঞান রাখেন শাইখ রবি বিন হাদি। রবি বিন হাদি যাকে হিজবি (দলবাজ) বলেছেন স্বল্প দিনের ব্যবধানে সে আপনাদের কাছে সে হিজবি (দলবাজ) হিসেবেই প্রকাশিত হবে।” [আসইলাতু শাবাবিত তায়েফ-তায়েফের যুবকদের প্রশ্ন সমূহ]

তিনি আরও বলেন,

«الشيخ ربيع في أرض الحرمين ونجد، نعم بحمد الله يغربل الحزبيين غربلةً ويبيِّن ما هم عليه»

“শাইখ রবি হারামাইন (মক্কা ও মদিনা) এবং নজদের মাটি থেকে হিজবি বা দলবাজদেরকে ছাঁকুনি দিয়ে ছেঁকে আলাদা করে দেন এবং তাদের আসল রূপ প্রকাশ করে দেন-আল হামদুলিল্লাহ।”

তিনি আরও বলেন,

«الشيخ ربيع بن هادي المدخلي فهو آيةٌ من آيات الله في معرفة الحزبيين»

“শইখ রাবি বিন হাদি আল মাদখালি হিজবিদের (দলবাজদের) পরিচয় সম্পর্কে জ্ঞান রাখার ক্ষেত্রে আল্লাহর একটি অন্যতম নিদর্শন।” [তুহফতুল কারীব ওয়াল মুজিব]

✪ ৫. শাইখ আল্লামা মুহম্মদ বিন আব্দুল ওয়াহাব আল বান্না রাহ. বলেন,

«أنا أقول: إنَّ ربيع هادي يحيى بن معين هذا الزمان»

“আমি বলি, রবি বিন হাদি হলেন, বর্তমান যুগের ইয়াহইয়া বিন মাঈন।” [আস সানাউল বাদী]

✪ ৬. শাইখ আল্লামা আহমদ বিন এহিয়া নাজমি রাহ. বলেন,

«فالذي يطعن في الشيخ ربيع هذا دليلٌ على أنَّه مبتدع، على أنَّه يحبِّذ المبتدعين ويلمِّع أصحاب البدع»

“সুতরাং যে ব্যক্তি শাইখ রবির সমালোচনা করে, এটাই প্রমাণ করে যে, সে একজন বিদআতি। আরও প্রমাণ করে যে, সে বিদআতিদের পক্ষ নেয় এবং বিদআতপন্থীদের প্রশংসা করে।” [ফোন মারফত ফতোয়া]

✪ ৭. মসজিদে হারামের ইমাম ও খতিব শাইখ মুহাম্মদ বিন আব্দুল্লাহ আস সুবাইল রাহ. বলেন,

«يُعادونه كثيرٌ من الناس أهل البدع وإلاَّ هو صاحب سُنَّة»

“অনেক বিদআত পন্থী তার সাথে শত্রুতা পোষণ করে। কিন্তু তিনি একজন সুন্নাহপন্থী।” [ফোন কল]
[শাইখদের মূল্যমান মতামতগুলা নেওয়া হয়েছে rsalafs ওয়েব সাইট থেকে]

শাইখ রবি বিন হাদি আল মাদখালি (হাফিযাহুল্লাহ) রচিত কতিপয় মূল্যবান গ্রন্থের তালিকা:

1. بين الإمامين مسلم والدار قطني ” مجلد كبير وهو رسالة الماجستير.

2. النكت على كتاب ابن الصلاح ” مطبوع في جزئين وهو رسالة الدكتوراه .

3. تحقيق كتاب المدخل إلى الصحيح ” للحاكم طبع الجزء الأول منه.

4. تحقيق كتاب التوسل والوسيلة ” للإمام ابن تيمية – مجلد.

5. منهج الأنبياء في الدعوة إلى الله فيه الحكمة والعقل .

6. منهج أهل السنة في نقد الرجال و الكتب و الطوائف .

7. “تقسيم الحديث إلى صحيح وحسن وضعيف بين واقع المحدثين ومغالطات المتعصبين ” رد على عبد الفتاح أبو غدة ومحمد عوامه.

8. كشف موقف الغزالي من السنة وأهلها.

9. صد عدوان الملحدين وحكم الاستعانة بغير المسلمين.

10. مكانة أهل الحديث .

11. منهج الإمام مسلم في ترتيب صحيحه .

12. أهل الحديث هم الطائفة المنصورة الناجية ـ حوار مع سلمـــان العودة ـ .

13. مذكرة في الحديث النبوي .

14. أضواء إسلامية على عقيدة سيد قطب وفكره.

15. مطاعن سيد قطب في أصحاب رسول الله صلى الله عليه وسلم .

16. العواصم مما في كتب سيد قطب من القواصم .

17. ” الحد الفاصل بين الحق والباطل ” حوار مع بكر أبو زيد .

18. مجازفات الحداد .

19. المحجة البيضاء في حماية السنة الغراء .

20. ” جماعة واحدة لا جماعات و صراط واحد لا عشرات ” حوار مع عبد الرحمن عبد الخالق .

21. النصر العزيز على الرد الوجيز .

22. التعصب الذميم وآثاره . عني به سالم العجمي .

23. بيان فساد المعيار ، حوار مع حزبي متستر .

24. التنكيل بما في توضيح المليباري من الأباطيل .

25. دحض أباطيل موسى الدويش .

26. إزهاق أباطيل عبداللطيف باشميل .

27. انقضاض الشهب السلفية على أوكار عدنان الخلفية .

28. النصيحة هي المسؤولية المشتركة في العمل الدعوي . ( طبع ضمن مجلة التوعية الإسلامية ) .

29. الكتاب والسنة أثرهما ومكانتهما والضرورة إليهما في إقامة التعليم في مدارسنا . ( ضمن مجلة الجامعة الإسلامية العدد السادس عشر ) .

30. حكم الإسلام في من سبَّ رسول الله أو طعن في شمول رسالته . ( مقال نشر في جريدة القبس الكويتية ) العدد ( 8576 ) بتاريخ ( 9/5/ 1997 ).

(শাইখের অফিসিয়াল ওয়েব সাইট rabee ডট নেট থেকে সংগৃহীত)

আল্লাহ তাআলা শাইখ রবি বিন হাদি আল মাদখালি (হাফিযাহুল্লাহ)-এর ইলমি খেদমত কবুল করুন, তাঁকে এর উত্তম বিনিময় দান করুন এবং শত্রুর শত্রুতা ও সমালোচনাকারীদের বিদ্বেষ সূলভ সমালোচনা থেকে হেফাজত করুন। আমিন।▬▬▬▬✿◈✿▬▬▬▬
লেখক:
আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল।
দাঈ, জুবাইল দাওয়াহ সেন্টার, সৌদি আরব।

Share On Social Media