কোরআন ও সহীহ সুন্নাহ ভিত্তিক প্রশ্নোত্তর প্রচার করাই হল এই ওয়েবসাইটের মূল উদ্দেশ্য।।

মহিলাদের দাওয়াতি কাজের হুকুম

যুগশ্রেষ্ঠ মুহাদ্দিস, ফাক্বীহ ও মুজাদ্দিদ, ইমাম মুহাম্মাদ নাসিরুদ্দীন আল-আলবানী (রাহিমাহুল্লাহ) কে প্রশ্ন করা হয় (শাইখ প্রশ্নটি পড়ছেন, যেটি সম্ভবত কোনো বোনের পক্ষ থেকে), “এখানে একটি প্রশ্ন যেটাকে আমার খুব অদ্ভুত মনে হচ্ছে: দা‘ওয়াহ দেয়ার সর্বোত্তম উপায় কী? দা‘ওয়াহ কীভাবে দেওয়া হয়?”

উত্তর: ❝নারীদের আমি বলছি, তোমরা তোমাদের বাড়িতে থাকো। দা‘ওয়াহর কাজটি তোমাদের চিন্তার বিষয় নয়। আমি তরুণদের মাঝে দা‘ওয়াহ শব্দটির (এরূপ) ব্যবহার প্রত্যাখ্যান করি যে, “এরা হলো দা‘ঈ”, যেনো দা‘ওয়াহ যুগের একটি ফ্যাশন হয়ে গিয়েছে। যে কারো কিছু পরিমাণ ‘ইলম রয়েছে, সে একজন দা‘ঈ হয়ে গিয়েছে। এটি শুধু অল্পবয়স্ক ছেলেদের আক্রান্ত করেনি, এটি অল্পবয়স্ক মেয়েদের এবং গৃহ অভ্যন্তরীণ নারীদের পর্যন্ত পৌঁছে গিয়েছে। তারা তাদের বাড়ির ও স্বামীর প্রতি দায়িত্ব থেকে দূরে সরে গিয়েছে এবং এমন জিনিসের অভিমুখী হয়েছে যা তাদের জন্য ওয়াজিব না, অর্থাৎ দা‘ওয়াহর কাজ করা। পূর্বের একটি প্রশ্ন একজন নারীর ব্যাপারে ছিলো যে আমার কুয়েতের মিটিং এর রেকর্ডিং থেকে শুনেছে যে নারীদের জন্য দা‘ওয়াহর কাজে বাইরে যাওয়া জায়েজ না। এবং এখানে এই প্রশ্নে জিজ্ঞেস করা হচ্ছে, “দা‘ওয়াহ দেয়ার সর্বোত্তম উপায় কি? দা‘ওয়াহ কীভাবে দেয়া হয়?” বিধান হলো একজন নারী বাড়িতে থাকবে এবং জরুরি প্রয়োজন ছাড়া তার জন্য বাইরে যাওয়া জায়েজ না। পূর্বে আমরা নাবী ﷺ এর বাণী উল্লেখ করেছি, “আর মসজিদে সালাত আদায়ের চেয়ে তাদের বাড়ি তাদের জন্য উত্তম।” বর্তমানে আমরা নারীদের মধ্যে একটি বহুবিস্তৃত ব্যাপার দেখি তা হলো, জুম‘আহ ছাড়াও জামা‘আতে সালাত আদায় করতে খুব বেশি মসজিদে যাওয়া। তাদের বাড়ি তাদের জন্য উত্তম, তবে যেমনটি আমি পূর্বে বলেছি, মসজিদের ইমাম যদি জ্ঞানী হন এবং যারা উপস্থিত আছেন তাদের দ্বীনের ব্যাপারে কিছু শেখান, আর এতে করে একজন নারী মাসজিদে সালাত আদায় করতে ও ‘ইলম নিতে যায়, তাহলে ঠিক আছে। কিন্তু দা‘ওয়াহর কাজে ব্যস্ত হয়ে যাওয়াটা, (তাহলে এটা জায়েজ না), তার উচিৎ বাড়িতে থাকা এবং তার স্বামী, অথবা ভাই, অথবা অন্য মাহরাম আত্মীয়দের দেয়া কিতাবাদি পড়া। তা করার পর এটা করা তার জন্য ঠিক আছে যে সে একটি দিন নির্ধারণ করবে এবং অন্য নারীদের তার বাড়িতে আসার দাওয়াত দিবে, অথবা সে অন্য কোনো নারীর বাড়িতে যাবে, একদল নারী বাইরে যাওয়ার চেয়ে এটি উত্তম, তাদের একজনের অন্যদের কাছে যাওয়াটা অন্যদের সকলের তার নিকট আসা থেকে উত্তম। আর (দা‘ওয়াহর জন্য) তার ভ্রমণে বের হওয়া হলো বর্তমান সময়ের একটি বিদ‘আত, যা এমনকি মাহরাম ছাড়াও হয়ে থাকে। আর আমি এটি শুধু নারীদের ব্যাপারেই বলছি না, এটা ওইসব তরুণ ছেলেদের জন্যও প্রযোজ্য যারা দা‘ওয়াহ বিষয়ে কথা বলতে পছন্দ করে, যদিও তাদের ‘ইলমের স্তর অগভীর।❞

·
তথ্যসূত্র:

https://youtu.be/kmu7QdqmSW0 [Manhaj ul-Haqq (সালাফী ইউটিউব চ্যানেল)]

·
অনুবাদক: রিফাত রাহমান সিয়াম

কৃতজ্ঞতা স্বীকার: ফেইসবুক পেইজ:

{সালাফী: ‘আক্বীদাহ্ ও মানহাজে}

Share This Post