কোরআন ও সহীহ সুন্নাহ ভিত্তিক প্রশ্নোত্তর প্রচার করাই হল এই ওয়েবসাইটের মূল উদ্দেশ্য।।

দু’আর আদব এবং কবুল হওয়ার উপায় সমূহ

নিম্নে দুআর কতিপয় আদব এবং তা কবুল হওয়ার উপায় তুলে ধরা হল:

💠 ১. সফর অস্থায় দুআ করা:

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, তিন ব্যক্তির দু’আ কবুল হয়-এতে কোন সন্দেহ নেই। যথা:
 (ক) মজলুমের দু’আ,
 (খ) মুসাফির ব্যক্তির দু’আ,
 (গ) সন্তানের উপর পিতার বদ্‌ দু’আ। (সুনান তিরমিজী,অধ্যায়ঃ পিতা-মাতার প্রতি সদাচরণ,আবু দাউদ, অধ্যায়ঃ নামায।)
সফর অবস্থায় দু’আ কবুল হওয়ার কারণ হল, ক্লান্তিবোধ, কষ্ট-পরিশ্রম ও একাকিত্বের কারণে মানুষের মন সাধারণত: নরম থাকে। আর নরম দিলে দুআ করলে আল্লাহ তা কবুল করেন। কেননা অন্তরের বিনম্রতা দু’আ কবুলের অন্যতম মাধ্যম।

💠 ২. বেশ-ভুষা ও পোশাক-পরিচ্ছদে মলিনতা প্রকাশ করা:

হাদীসে বর্ণিত হয়েছে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, “এক ব্যক্তি দীর্ঘ সফর করে ধুলো মলিন অবস্থায় আল্লাহকে ডাকে।“ (সহীহ মুসলিম, হা/1015, আবু হুরাইরা রা. হতে বর্ণিত)
তিনি আরও বলেন,
رُبَّ أَشْعَثَ مَدْفُوعٍ بِالْأَبْوَابِ لَوْ أَقْسَمَ عَلَى اللَّهِ لَأَبَرَّهُ
“উষ্ক-খুষ্ক ও এলোমলো চুল বিশিষ্ট এমন অনেক আল্লাহর বান্দা আছেন, যাকে বিভিন্ন দরজা থেকে ফিরিয়ে দেয়া হয়।( অর্থাৎ সে লোকসমাজে খুবই অবহেলিত ও গুরুত্বহীন মানুষ) অথচ তিনি যদি আল্লাহর উপর কসম কসম দিয়ে কোন কথা বলেন তবে আল্লাহ তা পূরণ করেন।” (সহীহ মুসলিম, আবু হুরায়রা রা. হতে বর্ণিত)

💠 ৩. দুআয় দু হাত উত্তোলন করা:

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন:
إِنَّ اللَّهَ حَيِيٌّ كَرِيمٌ يَسْتَحْيِي إِذَا رَفَعَ الرَّجُلُ إِلَيْهِ يَدَيْهِ أَنْ يَرُدَّهُمَا صِفْرًا خَائِبَتَيْنِ
“নিঃসন্দেহে আল্লাহ তা’আলা অতি মহানুভব ও লজ্জাশীল। বান্দা যদি দু’হাত তুলে তাঁর নিকট প্রার্থনা করে তবে নিরাশার করে শুণ্যহস্তে তাকে ফিরিয়ে দিতে তিনি লজ্জাবোধ করেন।” (তিরমিজী, আবু দাউদ, ইবনে মাজাহ, ইমাম আলবানী রহ. হাদীসটিকে সহীহ বলেছেন। সহীহুল জামে, ১/১৭৫৭, আত তারগীব ওয়াত তারহীব,২/ ২৭২)।
তাছাড়া তিনি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইস্তিস্কা বৃষ্টি প্রার্থনা ও বদরের প্রান্তরে হাত তুলে দু’আ করেছেন।

হাত তুলে দু’আ করার কয়েকটি পদ্ধতি রয়েছে তম্মধ্যেঃ

 শুধুমাত্র তর্জনী আঙ্গুল দিয়ে ইঙ্গিত করা। খুবতা দেয়ার সময় মিম্বারে দাঁড়িয়ে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এরূপ করতেন।
 দু’হাত উত্তোলন করে হাতের পৃষ্ঠদেশ কিবলার দিকে রাখা। ইস্তেকার দু’আয় এ পদ্ধতি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম থেকে বর্ণিত হয়েছে।
 দু হাত উত্তোলন করে হাতের পৃষ্ঠদেশ আসমানের দিকে রাখা। এ পদ্ধতি আনাস রা. থেকে বর্ণিত হয়েছে।

💠 ৪. নিতান্ত করুণভাবে একই দুয়া বার বার করা এবং মজবুতভাবে চাওয়া:

আবদুল্লাহ্‌ ইবনে মাসউদ রা. বলেন, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম যখন দু’আ করতেন তখন এক দু’আ তিনবার বলতেন। যখন কোন কিছু চাইতেন তখন তিন বার চাইতেন।

💠 ৫. পানাহার এবং পোশাক-পরিচ্ছদ হালাল উপার্জন থেকে হওয়া:

খাদ্য-পানীয় ও পোশাক-পরিচ্ছদ হালাল ও পবিত্র উপার্জন থেকে হওয়া দু’আ কবুল হওয়ার অন্যতম শর্ত। এই কারণে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন,
ومطعمُه حرامٌ ، ومشربُه حرامٌ ، وملبَسُه حرامٌ ، وغُذِيَ بالحرام . فأَنَّى يُستجابُ لذلك ؟
“কিভাবে তার দুআ কবুল হবে? তার খাদ্য হারাম, পানীয় হারাম, পরিধেয় বস্ত্র হারাম? (সহীহ মুসলিম, হা/1015, আবু হুরাইরা রা. হতে বর্ণিত)
আল্লাহু আলাম।

অনুবাদক: শাইখ আব্দুল্লাহ আল কাফী বিন আব্দুল জলীল
লিসান্স মদীনা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, সৌদি আরব
সম্পাদক: আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল
লিসান্স মদীনা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, সৌদি আরব
দাঈ, জুবাইল দাওয়াহ সেন্টার, সৌদি আরব

Share This Post