কোরআন ও সহীহ সুন্নাহ ভিত্তিক প্রশ্নোত্তর প্রচার করাই হল এই ওয়েবসাইটের মূল উদ্দেশ্য।।

একাধিক মসজিদের আযান শোনা গেলে আযানের জবাব দেয়ার নিয়ম এবং আযান চলাকালীন সময় সালাত শুরু করার বিধান

 ক) প্রশ্ন: একাধিক মসজিদ থেকে আযানের আওয়াজ শোনা গেলে কোন মসজিদের আযানের জবাব দিবো?
উত্তর:
বিভিন্ন স্থান থেকে একাধিক আযানের আওয়াজ কানে ভেসে আসলে একজন মানুষ তার নিজস্ব মহল্লা বা এলাকার সব চেয়ে নিকটস্থ মসজিদের আযানের জবাব দিবে এবং সে উক্ত মসজিদে গিয়ে সালাত আদায় করবে। অন্যান্য দূর-দূরান্তের মসজিদের আযানের জবাব দেয়ার প্রয়োজন নাই যেগুলোতে সে সালাত আদায় করার জন্য যাবে না।

 খ) প্রশ্ন: আযানের সময় সালাত আদায় করা নিষেধ কি?

উত্তর: আযানের সময় সালাত আদায় করা নিষেধ-এমন কথা হাদিসে বর্ণিত হয় নি। বরং হাদিসে তিনটি সময় সালাত আদায় করায় নিষেধাজ্ঞা বর্ণিত হয়েছে। সেগুলো হল:
◉ ১) ফজর সালাতের পর থেকে তীর বরাবর সূর্য উদিত হওয়া পর্যন্ত। অর্থাৎ সূর্য উদিত হওয়ার পর ১৫/২০ মিনিটি পর্যন্ত।
◉ ২) ঠিক দুপুরের সময়। অর্থাৎ যোহরের সময় হওয়ার ১০ মিঃ আগে থেকে যোহরের সময় হওয়া পর্যন্ত।
◉ ৩) আছর ছালাতের পর থেকে পরিপূর্ণ রূপে সূর্য অস্ত যাওয়া পর্যন্ত।
এ মর্মে হাদিস হল:
সাহাবি উকবা বিন আমের জুহানী রা. বলেন,
ثَلاثُ سَاعَاتٍ نَهَانَا رَسُولُ الله صَلَّى الله عَلَيهِ وَسَلَّمَ أَنْ نُصَلِّي فِيهِنَّ, وَأَنْ نَقْبُرَ فِيهِنَّ مَوْتَانَا : حِينَ تَطْلُعُ الشَّمْسُ بَازِغَةً حَتَّى تَرْتَفِعَ, وَحِينَ يَقُومُ قَائِمُ الظَّهِيرَةِ, وَحِينَ تَضَيَّفُ الشَّمْسُ لِلْغُرُوبِ حَتَّى تَغْرُبَ -رواه مسلم
“তিনটি সময়ে রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আমাদেরকে নামায পড়তে এবং মৃতদের দাফন করতে নিষেধ করতেন। সূর্য উদয়ের সময়; যতক্ষণ না তা পুরোপুরি উঁচু হয়ে যায়। সূর্য মধ্যাকাশে অবস্থানের সময় থেকে নিয়ে তা পশ্চিমাকাশে ঢলে পড়া পর্যন্ত। যখন সূর্য ডুবার আগ মুহূর্তে সূর্য হলুদাভ হওয়া থেকে শুরু করে সূর্য ডুবা পর্যন্ত।” [সহীহ মুসলিম : ১/৫৬৮]
সুতরাং আযান চলাকালীন সময় সালাত আদায় করলেও তা শুদ্ধ হবে। তবে আযানের জবাব এবং আযানের পরে দরুদ ও দুআ পড়ার পর সালাত শুরু করা উত্তম। কেননা হাদিসে আযানের জবাব ও আযান শেষে দরুদ ও দুআ পড়ার ব্যাপারে যথেষ্ট গুরুত্ব রয়েছে।
এ কারণে অনেক আলেম, আযান চলাকালীন সময়ে নতুন করে নফল সালাত শুরু করাকে মাকরূহ (অ-পছন্দনীয়) বলেছেন।
তবে যেহেতু সময় হওয়ার পরই আযান দেয়া হয় আর সালাতের অন্যতম শর্ত হল, সময় হওয়া। যেমন আল্লাহ তাআলা বলেন:
إِنَّ الصَّلَاةَ كَانَتْ عَلَى الْمُؤْمِنِينَ كِتَابًا مَّوْقُوتًا
“নিশ্চয় সালাত মুমিনদের উপর ফরয নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে।” (সূরা নিসা: ১০৩)

সেহেতু কোন ব্যক্তি যদি জরুরি ব্যস্ততার কারণে সময় হওয়ার সাথে সাথে (আযান চলাকালীন সময়ে হলেও) ফরয সালাত শুরু করে তাহলে তা শুদ্ধ হবে ইনশাআল্লাহ। তবে ফরয ছাড়া সুন্নত বা নফল সালাত শুরু করা মাকরূহ (অ পছন্দনীয়)।
কিন্তু স্বাভাবিক অবস্থায় আযান শেষ হওয়ার পর আযানের দুআ-দুরুদ পড়ে সালাত শুরু করার চেষ্টা করা উত্তম।
الله أعلم بالصواب
▬▬▬ ◈◉◈▬▬▬
উত্তর প্রদানে:
আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল
দাঈ, জুবাইল দাওয়াহ এন্ড গাইডেন্স সেন্টার, KSA

Share This Post