কোরআন ও সহীহ সুন্নাহ ভিত্তিক প্রশ্নোত্তর প্রচার করাই হল এই ওয়েবসাইটের মূল উদ্দেশ্য।।

অমুসলিমদের তৈরি করা বিভিন্ন পণ্য ও আবিষ্কার থেকে উপকৃত হওয়ার ব্যাপারে ইসলাম কী বলে?

প্রশ্ন: ইহুদি-খৃষ্টানদের তৈরি করা বিভিন্ন পণ্য ব্যবহার এবং তাদের বিভিন্ন আবিষ্কার, জ্ঞান-গরিমা ও অভিজ্ঞতা থেকে উপকৃত হওয়ার ব্যাপারে ইসলাম কী বলে?
উত্তর:
ইসলামের দৃষ্টিতে অমুসলিমদের ধর্মীয় রীতি-নীতি ও কৃষ্টি-কালচার অনুসরণ করা হারাম। আবদুল্লাহ ইবনে উমর রা. হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন,
مَنْ تَشَبَّهَ بِقَوْمٍ فَهُوَ مِنْهُمْ
“যে ব্যক্তি বিজাতির সাদৃশ্য অবলম্বন করে, সে তাদের দলভুক্ত হিসেবে গণ্য হবে।” [সুনানে আবু দাউদ, অধ্যায়: পোশাক-পরিচ্ছেদ হা/৪০৩১-হাসান সহিহ]
কিন্তু দুনিয়াবি বিষয়ে মুসলিম-অমুসলিম নির্বিশেষে যে কারও অভিজ্ঞতা লব্ধ জ্ঞান-গবেষণা, অভিজ্ঞতা, বৈজ্ঞানিক আবিষ্কার, কৌশল ইত্যাদি থেকে লাভবান হওয়া মোটেও দোষণীয় নয়। তবে তা হালাল কাজ ও উপকারী ক্ষেত্রে ব্যবহার করতে হবে। কেউ যদি তাদের আবিষ্কৃত কোনও কোন কিছুকে আল্লাহর নাফরমানি, পাপাচার ও শরিয়া বিরোধী কাজে ব্যবহার করে তাহলে তা নি:সন্দেহে হারাম।
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বহু ক্ষেত্রে দুনিয়াবি বিষয়ে অমুসলিমদের থেকে উপকৃত হয়েছেন এবং সাহাবিদেরকে পরামর্শ দিয়েছেন। সুতরাং ইহুদি-খৃষ্টান, হিন্দু, বৌদ্ধ ইত্যাদি যে কারও থেকে দুনিয়াবি বিষয়ে উপকৃত হওয়া জায়েজ আছে।
◈◈ অমুসলিমদের থেকে দুনিয়াবি বিষয়ে উপকৃত হওয়া সংক্রান্ত কিছু হাদিস:
◍ ১. সাদ ইবনে আবু ওয়াক্কাস রা. থেকে বর্ণিত, জনৈক ব্যক্তি রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর নিকট এসে বলল, আমি আমার স্ত্রীর সাথে আযল করে থাকি। তখন রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাকে বললেন, তুমি এ কাজ কেন কর?
লোকটি বলল, আমি তার সন্তানের ক্ষতির আশংকা করি।
তখন রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন,
‏”‏ لَوْ كَانَ ذَلِكَ ضَارًّا ضَرَّ فَارِسَ وَالرُّومَ ‏”‏
“যদি এ কাজ ক্ষতিকর হত তাহলে তা পারস্য ও রোমবাসীদেরকেও ক্ষতিসাধন করত।”
রাবি যুহায়র তাঁর বর্ণনায় উল্লেখ করেছেন, এ কাজ (আযল) যদি এ উদ্দেশ্যেই হয় তাহলে তা করা সঠিক নয়। কেননা তা পারস্য ও রোমবাসীদের কোন প্রকার ক্ষতি করে নি।
[সহীহ মুসলিম (ইসলামিক ফাউন্ডেশন) ১৭/ বিবাহ, পরিচ্ছেদ: ২৪. ‘গীলা’ অর্থাৎ স্তন্যদায়িনি স্ত্রীর সাথে সঙ্গমের বৈধতা এবং আযল মাকরূহ হওয়া প্রসঙ্গ]
আযল অর্থ: স্ত্রীকে গর্ভধারণ থেকে বিরত রাখার উদ্দেশ্যে স্ত্রী মিলনের সময় বাইরে বীর্যপাত করা।
◍ ২. হাদিস বর্ণিত হয়েছে, রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ও সাহাবিগণ তৎকালীন শাম (সিরিয়া) ও ইয়েমেনের অমুসলিমদের তৈরি করা কাপড় পরিধান করতেন।
عن الْمُغِيرَة بْن شُعْبَةَ رضي الله عنه- قَالَ انْطَلَقَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ لِحَاجَتِهِ ثُمَّ أَقْبَلَ فَلَقِيتُهُ بِمَاءٍ فَتَوَضَّأَ وَعَلَيْهِ جُبَّةٌ شَأْمِيَّةٌ، فَمَضْمَضَ وَاسْتَنْشَقَ وَغَسَلَ وَجْهَهُ، فَذَهَبَ يُخْرِجُ يَدَيْهِ مِنْ كُمَّيْهِ، فَكَانَا ضَيِّقَيْنِ فَأَخْرَجَهُمَا مِنْ تَحْتُ فَغَسَلَهُمَا وَمَسَحَ بِرَأْسِهِ وَعَلَى خُفَّيْهِ
صحيح البخاري، كِتَاب الْجِهَادِ وَالسِّيَر، باب الْجُبَّةِ فِي السَّفَرِ وَالْحَرْب، (561) رقم(2918). وكتاب اللباس، باب مَنْ لَبِسَ جُبَّةً ضَيِّقَةَ الْكُمَّيْنِ فِي السَّفَر، (1134) رقم(5798) باللفظ السابق. وصحيح مسلم، كتاب الطهارة، باب المسح على الخفين، (132) رقم (77-274)
وعند الترمذي والنسائي: جبة رُومِيّة.
وفي سنن أبي داود وعليه جبة من صوف من جباب الروم.
◍ ৩. তারা রোম ও পারস্য এবং ইসলাম পূর্ব জাহেলি যুগ থেকে প্রচলিত স্বর্ণ ও রৌপ্যের তৈরি দিনার-দিরহাম ব্যবহার করতেন। ইসলাম আসার পর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তা বাতিল করে ‘ইসলামি মুদ্রা’ ব্যবস্থা চালু করেন নি।
◍ ৪. রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পারস্য দেশ থেকে আগত সাহাবি সালমান ফারেসি রা. এর পরামর্শ ক্রমে পারস্য দেশে খন্দক বা শহরের চারা পাশে গর্ত খনন করে শত্রু থেকে আত্মরক্ষার অভিজ্ঞতা কাজে লাগান এবং মদিনাকে শহরকে রক্ষা করেন। যা ‘খন্দক যুদ্ধ’ নামে পরিচিত।
مشورة سلمان الفارسي رضي الله عنه، حيث قال: إنا كنا بفارس إذا حوصرنا خندقنا علينا فأمر النبي -صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ- بحفر الخندق حول المدينة وعمل فيه بنفسه ترغيباً للمسلمين فسارعوا إلى عمله حتى فرغوا منه وجاء المشركون فحاصروهم”.
وفي عون المعبود[54]: “سميت الغزوة بالخندق لأجل الخندق الذي حفر حول المدينة بأمره عليه الصلاة والسلام لما أشار به سلمان الفارسي فإنه من مكائد الفرس دون العرب”.
এ বিষয়ে আরও বহু প্রমাণ রয়েছে।
◍ ৫. আমর ইবনে শারদ রা. তাঁর পিতা হতে বর্ণনা করেন। তিনি বলেন,
كُنْتُ رِدْفَ النَّبِيِّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ , فَأَنْشَدْتُهُ مِائَةَ قَافِيَةٍ مِنْ قَوْلِ أُمَيَّةَ بْنِ أَبِي الصَّلْتِ الثَّقَفِيِّ ، كُلَّمَا أَنْشَدْتُهُ بَيْتًا ، قَالَ لِيَ النَّبِيُّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ : ” هِيهْ ” حَتَّى أَنْشَدْتُهُ مِائَةً يَعْنِي بَيْتًا ، فَقَالَ النَّبِيُّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ : ” إِنْ كَادَ لَيُسْلِمُ ” .
“আমি একবার বাহনে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর পেছনে বসা ছিলাম। তারপর আমি তাঁকে উমাইয়া ইবনে আবু-সালত বিরচিত একশ চরণ বিশিষ্ট একটি কবিতা আবৃত্তি করে শোনালাম। যখনই একটি পঙক্তি আবৃতি করতাম তিনি বলতেন, আরও শোনাও। এভাবে একশটি পঙক্তি আবৃতি করলাম।
এরপর নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, “সে ইসলাম গ্রহণের কাছাকাছি এসে গেছে।” [সহীহ শামায়েলে তিরমিযী ৩৭. কাব্যিক ছন্দে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর কথা, পরিচ্ছেদ: নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম অমুসলিম কবির কবিতাও শ্রবণ করতেন, সহীহ মুসলিম, হা/৬০২২]
এ আলোচনা থেকে আদর্শিক, ধর্মীয় ও সংস্কৃতি ক্ষেত্রে ইসলামের স্বতন্ত্রতা এবং দুনিয়াবি বিষয়ে ইসলামে উদারতা প্রমাণিত হয়।
আল্লাহ তাআলা আমাদেরকে মহান জীবনাদর্শের আলোকে আমাদের জীবন গড়ার তাওফিক দান করুন। আমিন।
আল্লাহু আলাম।
▬▬▬▬◈◍◈▬▬▬▬
উত্তর প্রদানে:
আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল।
দাঈ, জুবাইল দাওয়াহ সেন্টার, সৌদি আরব।
Share This Post