কোরআন ও সহীহ সুন্নাহ ভিত্তিক প্রশ্নোত্তর প্রচার করাই হল এই ওয়েবসাইটের মূল উদ্দেশ্য।।

অবিভাবক ছাড়া বিয়ে শুদ্ধ না হওয়ার ব্যাপারে কতিপয় হাদীস

১) রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেনঃ
ﻻ ﻧﻜﺎﺡ ﺇﻻ ﺑﻮﻟﻲ
অভিভাবক ব্যতীত বিবাহ হবে না। (তিরমিজী, আবু দাউদ, ইবনে মাজাহ)
২) ﻻ ﺗﺰﻭﺝ ﺍﻟﻤﺮﺃﺓ ﺍﻟﻤﺮﺃﺓ، ﻭﻻ ﺗﺰﻭﺝ ﺍﻟﻤﺮﺃﺓ ﻧﻔﺴﻬﺎ
“কোন মহিলা অপর মহিলাকে বিবাহ দিতে পারবে না। সে নিজেও নিজের বিবাহ দিতে পারবে না।” (মিশকাত, ইবনে মাজাহ)
৩) রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আরও বলেছেনঃ
أَيُّمَا امْرَأَةٍ لَمْ يُنْكِحْهَا الْوَلِيُّ فَنِكَاحُهَا بَاطِلٌ فَنِكَاحُهَا بَاطِلٌ فَنِكَاحُهَا بَاطِلٌ…
‘‘যে মেয়েকে তার অভিভাবক বিয়ে না দিবে [সে নিজে বিয়ে করলে] তার বিয়ে বাতিল, তার বিয়ে বাতিল, তার বিয়ে বাতিল।’’ [হাদীসটি ইবনু মাজাহ্ বর্ণনা করেছেন, হাদীসটি সহীহ্, দেখুন ‘সহীহ্ ইবনু মাজাহ্ (১৮৭৯)।
৪. অন্য বর্ণনায় আয়েশা হতে বর্ণিত হয়েছে রসূল সা. বলেছেনঃ

أَيُّمَا امْرَأَةٍ نَكَحَتْ بِغَيْرِ إِذْنِ مَوَالِيهَا فَنِكَاحُهَا بَاطِلٌ ثَلَاثَ مَرَّاتٍ

‘‘যে মেয়েই তার অভিভাবকের অনুমতি ব্যতীত বিয়ে করবে তার বিয়ে বাতিল। এ কথাটি তিনবার উল্লেখ করেন।’’ [এ ভাষায় হাদীসটি ইমাম আবূ দাঊদ (২০৮৩), তিরমিযী (১১০২) বর্ণনা করেছেন। হাদীসটি সহীহ্, দেখুন, সহীহ্ আবী দাঊদ, সহীহ্ তিরমিযী, সহীহ্ জামে‘ইস সাগীর (২৭০৯) ও ‘মিশকাত (৩১৩১)]।
এ সকল হাদীস দ্বারা প্রমাণিত হয় যে, অবিভাবগণ ছাড়া বিয়ে শুদ্ধ নয়।

 আরেকটি চরম সত্য কথা হল, অভিভাবকের অনুমিত ছাড়া বিয়ে বা তথাকথিত কোর্ট ম্যারেজ এর ফতোয়ার কারণে সমাজে অবৈধ প্রেম, জিনা-ব্যাভিচারের রাস্তা খুলে গেছে।

অনেক ছেলে-মেয়ে চুটিয়ে প্রেমে লিপ্ত থাকে অবশেষে পিতামাতা এবং পরিবারের সকলের প্রত্যাশার গুড়ে বালি দিয়ে মেয়েটি এক দিন বলে যে, উমুকের সাথে তার কোর্ট মেরেজ হয়ে গেছে!! তারপর হয় শুরু হয় দু পরিবারের মাঝে মন মালিন্য, সামাজিক বিশৃংখলা অথবা অপারগ হয়ে পিতামাতা তাদের কষ্ট ও দীর্ঘশ্বাসকে বুকের মধ্যে দাফন করে সে বিয়েকে মেনে নেয়!!
অথবা দুজন ছেলেমেয়ে অবৈধ প্রেমের একপর্যায়ে দুজনে বিবাহ বহির্ভূত লিভটুগেদারের মত জঘন্য পথ বেছে নেয় কিন্তু সামাজিকতা রক্ষার স্বার্থ তারা প্রচার করে যে, তাদের কোর্ট মেরেজ হয়ে গেছে!!
এভাবে আরও কত ধরণের অন্যায়-অপকর্ম চলছে কথিত এই কোর্ট মেরেজকে কেন্দ্র করে তার কোন ইয়োত্তা নাই। অথচ ইসলাম এ সকল অপকর্মের রাস্তা বন্ধ করতে পিতা বা অভিভাবকের অনুমতিকে বিয়ের অন্যতম শর্ত হিসেবে নির্ধারণ করে দিয়েছে।

 আমাদের দেশে প্রচুর পরিমানে কোর্ট ম্যারেজ হচ্ছে। কারণ হল, হানাফী ফতোয়া। এ ফতোয়া না থাকলে হয়ত তা এতটা হতো না। যেমন সৌদি আরবে অলি বা অভিভাবকের অনুমতি ছাড়া বিবাহ করা কল্পন করা যায়। কোন কোর্ট তা কখনো করাবে না। কারণ সেখানে সহীহ সুন্নাহ অনুযায়ী কোর্ট পরিচালিত হয়। আল হামদুলিল্লাহ।
আল্লাহু আলাম।
—————-
আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল।।

Share This Post