এমন আত্মসম্মান নিয়ে আসো যে আল্লাহ তকদির লেখার আগে জিজ্ঞাসা করবেন বান্দা তুমি কী চাও একটি কুফরি বাক্য

প্রশ্ন: এই বাক্য কি কুফরি হবে যে, তুমি এমন আত্মসম্মান নিয়ে আসো যে, আল্লাহ তকদির লেখার আগে জিজ্ঞাসা করবেন যে, বান্দা তুমি কী চাও? উত্তর: এ বাক্যটি মারাত্মক ভ্রান্ত ও ইমান বিধ্বংসী কুফরি কথা। নিম্নে এ বিষয়ে ব্যাখ্যা দেওয়া হলো: و بالله التوفيق ❑ প্রথমত: তকদিরের প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করা হলো, ঈমানের ছয়টি রোকনের একটি। …

Read more

Share:

আল্লাহ, রাসূল, কুরআন বা ইসলামের কোন বিধানকে ব্যাঙ্গ-বিদ্রুপ ও গালমন্দ করার বিধান ও শাস্তি এবং এ ক্ষেত্রে সাধারণ মানুষের করণীয়

প্রশ্ন: কেউ যদি আমার আল্লাহ অথবা নবী অথবা কুরআনকে গালমন্দ করে ইসলামের দৃষ্টিতে তার বিধান কি এবং একজন সাধারণ মুসলিম হিসেবে তার প্রতি আমার কী করণীয়? উত্তর: এ কথায় কোন সন্দেহ নাই যে, আল্লাহ ও তাঁর রাসূলকে গালাগালি করা, কুরআন, হাদিস, সালাত, হজ্জ, পর্দা ইত্যাদি ইসলামের বিধিবিধানকে উপহাস ও ঠাট্টা-মশকরা করা ইসলামের দৃষ্টিতে মারাত্মক অন্যায় …

Read more

Share:

আমরা চেষ্টা করেছি বাকি আল্লাহ ভরসা এ কথার মধ্যে শিরক আছে কি

❑ প্রশ্ন-১: আমরা প্রায়শই বলি, “আমরা চেষ্টা করেছি, বাকি আল্লাহ ভরসা।” এ কথার মধ্যে শিরক আছে কি? উত্তর: এ কথা সঠিক। এতে কোনও শিরক নেই। কারণ ইসলাম আমাদেরকে শিখিয়েছে, আল্লাহর নামে আগে কাজ করতে হবে, চেষ্টা ও পরিশ্রম করতে হবে অতঃপর সফলতার জন্য মহান আল্লাহর উপর ভরসা করতে হবে। চেষ্টা-পরিশ্রম না করে কেবল আল্লাহর উপর …

Read more

Share:

মাইরি শব্দের মধ্যে লুকিয়ে আছে ভয়াবহ শিরক

জানেন কি? ‘মাইরি’ শব্দের মধ্যে লুকিয়ে আছে ভয়াবহ শিরক! আমাদের সমাজে কিছু মানুষ শ্রোতাকে কোনও বিষয় নিশ্চিতভাবে বিশ্বাস করানো, জোর দিয়ে কিছু বলা, বিস্ময় প্রকাশ করা, আবার কোন কারণ ছাড়াই বাক্যের আগে-পরে এ শব্দটি ব্যবহার করে থাকে। বাংলাদেশের তুলনায় ভারতের পশ্চিম বাংলায় এ শব্দটির ব্যবহার বেশি লক্ষ করা যায়। কিন্তু এর অর্থ কী বা ইসলামের …

Read more

Share:

চোখের পাতা লাফানো শারীরিক সমস্যা নাকি শুভ-অশুভের আলামত এবং প্রতিকার কী

মাঝেমধ্যেই আমাদের চোখের পাতা লাফায় বা চোখ নাচে। এ ক্ষেত্রে কেউ মনে করে, চোখের পাতা লাফানো মানেই সর্বনাশ আবার কেউ মনে করে ভালো কিছুর পূর্বাভাস। অনেকের মতে, বাম চোখের পাতা লাফালে কোনও না কোনও বিপদ আসন্ন। এমনটা হলে বাড়ির লোকজন যথেষ্ট দুশ্চিন্তায় থাকেন। আবার কেউ মনে করে, চোখ কাঁপলে তার শুভ-অশুভ ইঙ্গিত নির্ভর করে ব্যক্তির …

Read more

Share:

শাসককে স্পষ্ট কুফরী করতে দেখলে তার বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করা ওয়াজিব নাকি ওয়াজিব না

বর্তমান যুগের অন্যতম শ্রেষ্ঠ মুহাদ্দিস ও ইয়েমেনে সালাফী দাওয়াতের মুজাদ্দিদ ইমাম মুক্ববিল বিন হাদী আল-ওয়াদিঈ রাহিমাহুল্লাহকে প্রশ্ন করা হয়, . “প্রশ্ন: (শাসককে) স্পষ্ট কুফরী করতে দেখলে তার বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করা ওয়াজিব নাকি ওয়াজিব না?” উত্তর: “এক্ষেত্রে মুসলিমদের অবস্থা পর্যালোচনা করা ওয়াজিব: ◾তারা কি আদৌ এই স্পষ্ট কুফরীর মোকাবেলা করার সক্ষমতা রাখে? নাকি শুধু শুধুই নিজেদেরকে …

Read more

Share:

কাফিরদের উৎসবে তাদের ধর্মীয় উপাসনালয় পাহারা দেওয়ার বিধান

সৌদি আরবের ইলমি গবেষণা ও ফাতাওয়া প্রদানের স্থায়ী কমিটি (সৌদি ফতোয়া বোর্ড) প্রদত্ত ফতোয়া: س1: ما حكم مسلم يعمل حارسا للكنيسة؟ ج1: لا يجوز للمسلم أن يعمل حارسا للكنيسة؛ لأن فيه إعانة لهم على الإثم، وقد نهى الله سبحانه عن التعاون على الإثم فقال تعالى: {وَلَا تَعَاوَنُوا عَلَى الْإِثْمِ وَالْعُدْوَانِ} [سورة المائدة الآية 2]. وبالله …

Read more

Share:

তাবিজের পক্ষাবলম্বন কারীদের দলিল খণ্ডন

যে সকল ভাইয়েরা কুরআন-হাদিসের দুআ থেকে বানানো তাবিজকে বৈধ বলেন তারা ইবনে তায়মিয়া রাহ. এর একটি ফতোয়া এবং আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস রা. ও আব্দুল্লাহ ইবনে আমর রা. থেকে বর্ণিত দুটি আসার দ্বারা দলিল পেশ করে থাকেন। নিম্নে তাদের এ সকল দলিল পর্যালোচনা ও খণ্ডণ করা হল: ❑ ইবেন তায়মিয়ার ফতোয়া এবং ইবনে আব্বাস রা. এর …

Read more

Share:

তাবিজ দ্বারা রোগ মুক্তি হলে তা ব্যবহার করা বৈধ হবে কি

প্রশ্ন: তাবিজ দ্বারা রোগ মুক্তি হলে তা ব্যবহার করা বৈধ হবে কি? উত্তর: ইসলামের দৃষ্টিতে তাবিজ ব্যবহার হারাম। এর দ্বারা উপকার হোক বা না হোক সেটা ধর্তব্য নয়। যুক্তি দিয়ে ইসলাম চলে না। বরং ইসলামের ভিত্তি হল, দলীল। তাবিজ ব্যবহার বৈধ হলে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তা করতেন, সাহাবীগণ করতেন। কিন্তু তারা তা করেন …

Read more

Share:

নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর নিকট শাফায়াত চাওয়া শিরক

প্রশ্ন: রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম যেহেতু কিয়ামতের মাঠে শাফায়াত করবেন সেহেতু তাঁর কাছে কি শাফায়াত চাওয়া যাবে? উত্তর: আল্লাহর অনুমতি ক্রমে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাঁর উম্মতের জন্য শাফায়াত (সুপারিশ) করবেন। তাঁর অনুমতি ব্যতিরেকে আল্লাহর দরবারে কোন নবী-রাসূল, ফেরেশতা, শহিদ, ওলি-আউলিয়া কেউ শাফায়াত (সুপারিশ) করার সুযোগ পাবে না। আল্লাহ তাদেরকে অনুমতি দিবেন তারপর …

Read more

Share: