পশু-পাখিকে খাঁচায় বন্দি রেখে প্রতিপালন বা চিড়িয়াখানায় বন্দি রেখে প্রদর্শনের বিধান

প্রশ্ন: পশু-পাখি খাঁচায় বন্দি রেখে প্রতিপালন করা এবং চিড়িয়াখানায় বন্দি রেখে প্রদর্শন করা কি জায়েজ?
উত্তর:
বনের পশু-পাখি খাঁচায় বন্দি রেখে প্রতিপালন করা জায়েজ যদি তাকে তাদেরকে প্রয়োজনীয় খাদ্য-পানি দেয়া হয় এবং তার প্রতি যথার্থভাবে যত্ন নেয়া হয়।
এ ক্ষেত্রে বিখ্যাত নুগাইরের হাদিসটি দলিল হিসেবে প্রযোজ্য। হাদিসটি হল:
আনাস রা. বলেন, উম্মে সুলাইমের এক ছেলেকে আবু ওমায়র বলে ডাকা হতো। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তার কাছে আসলে অনেক সময় রসিকতা করতেন।
একদা রসিকতা করার জন্য তাদের বাড়ীতে প্রবেশ করে দেখলেন যে, সে চিন্তিত। তাই তিনি বললেন, কি হয়েছে আবু ওমায়রকে চিন্তামগ্ন দেখছি?
উপস্থিত ব্যক্তিরা বলল, হে আল্লাহর রাসূল, তার নুগাইর নামে পাখিটি মরে গেছে, যাকে নিয়ে সে খেলত। এরপর থেকেই তিনি তাকে বলতেন,
يَا أَبَا عُمَيْرٍ مَا فَعَلَ النُّغَيْرُ
“হে আবু ওমাইর তোমার নুগাইর পাখির কী খবর?” (সহিহ বুখারি হা/৬১২৯ ও মুসলিম হা/২১৫০)
পাখি বন্দি রাখা নিষিদ্ধ হলে, তিনি অবশ্যই আবু উমায়রের পরিবারকে পাখিটি ছেড়ে দেয়ার নির্দেশ দিতেন। কিন্তু তিনি তা করেন নি। এখান থেকেই বাড়িতে পাখি পালনের বৈধতার পক্ষে সম্মানিত ফকিহগণ মত প্রকাশ করেছেন।

কিন্তু যদি তাকে খাদ্য-পানি থেকে বঞ্চিত করা হয় বা পর্যাপ্ত যত্ন না নেয়া হয় তাহলে তা হারাম। যেমন নিম্নক্ত হাদিসটি:
আব্দুল্লাহ রা. হতে বর্ণিত, রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন,
عُذِّبَتِ امْرَأَةٌ فِي هِرَّةٍ سَجَنَتْهَا حَتَّى مَاتَتْ فَدَخَلَتْ فِيهَا النَّارَ لاَ هِيَ أَطْعَمَتْهَا وَسَقَتْهَا إِذْ حَبَسَتْهَا وَلاَ هِيَ تَرَكَتْهَا تَأْكُلُ مِنْ خَشَاشِ الأَرْضِ
“এক মহিলাকে একটি বিড়ালের জন্য আজাব দেয়া হয়েছে এজন্য যে, সে বিড়ালটিকে আটকে রাখায় সেটি সেটি মারা গিয়েছিলো। ফলে সে জাহান্নামে গেছে। সে বিড়ালটিকে বেঁধে রেখেছিলো কিন্তু নিজেও তাকে খাবার-পানীয় দেয় নি আবার ছেড়েও দেয় নি যে, সে জমিনের পোকামাকড় খেয়ে বাঁচতে পারে।” [সহিহ মুসলিম, হা/৫৭৪৫, অধ্যায়: সালাম, পরিচ্ছদ: বিড়াল হত্যা করা হারাম-হাদিস একাডেমী]

❑ প্রশ্ন: চিড়িয়াখানায় পশু-পাখি বন্দি রেখে প্রদর্শনী করার বিধান কি?
উত্তর:
এতে কোন সমস্যা মনে করি না। কোনও অসুবিধা নেই। কারণ এতে অনেক উপকারিতা রয়েছে। মানুষ এসব প্রাণী দেখে সেগুলোকে চিনতে পারে এবং সেগুলো সম্পর্কে জ্ঞানার্জন করতে পারে। যদি তাদের প্রয়োজনীয় দেখাশোনা ও পর্যাপ্ত খাদ্যপানীয় সরবরাহ করা হয়।
– শাইখ বিন বায রহঃ
[বিন বায রহঃ এর অফিসিয়াল ওয়েব সাইট থেকে সামান্য সংক্ষেপায়িত]
▬▬▬▬◈◯◈▬▬▬▬
উত্তর প্রদানে:
আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল।
লিসান্স, মদিনা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, সৌদি আরব।