কোরআন ও সহীহ সুন্নাহ ভিত্তিক প্রশ্নোত্তর প্রচার করাই হল এই ওয়েবসাইটের মূল উদ্দেশ্য।।

কেউ হঠাৎ অন্যায়/পাপ করে ফেললে তা গোপন রাখা কতর্ব্য

❑ কোন সৎ, দ্বীনদার, ভালো মানুষ যদি হঠাৎ কোন অন্যায়/পাপকাজ করে ফেলে আর তা যদি অন্য কোন ঈমানদার দেখে ফেলে তাহলে তার করণীয় হল, বিষয়টি গোপন রাখা; কারও সামনে প্রকাশ না করা। বরং তা প্রকাশ করাই গীবত।

আমরা জানি, কোন মানুষই ভুলের ঊর্ধ্বে নয়। তবে সে ব্যক্তিই উত্তম যে ভুল করার পর তওবা করে। আমাদের সবার জীবনেই ত্রুটি-বিচ্যুতি ঘটে। কারোটা প্রকাশ পায়; কারোটা প্রকাশ পায় না।
সম্ভব হলে একান্ত নিভৃতে সে ব্যক্তিকে সরাসরি বা ইঙ্গিতে ভুলটি সংশোধনের জন্য নসিহত করা যেতে পারে। সৎ ব্যক্তির বৈশিষ্ট্য হচ্ছে, কেউ তাকে নসিহত করলে তা সে গ্রহণ করে আর নিজেকে দ্রুত সংশোধন করে নেয়।

কেউ কারও গুনাহ ঢেকে রাখলে আল্লাহ তাআলাও কিয়ামতের দিন তার দোষ-ত্রুটিগুলো ঢেকে রাখবেন। যেমন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন,
مَنْ سترَ أخاهُ المُسلمَ في الدُّنيا سترَهُ اللهُ يومَ القيامةِ -صحيح الجامع
“যে তার মুসলিম ভাইয়ের দোষ ঢেকে রাখল আল্লাহ কেয়ামতের দিন তার দোষ ঢেকে রাখবেন।” (বুখারী)।

❑ অবশ্য যদি সে এমন অন্যায় করে যা দেশ ও জাতির জন্য ধ্বংসাত্মক বা সমাজে বিশৃঙ্খলা লাগাতে পারে তাহলে তা অনতি বিলম্বে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী বা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো জরুরি। যাতে অন্য মানুষ তার ক্ষতি থেকে রক্ষা পায়।

❑ আর কোন ব্যক্তি যদি প্রকাশ্যেই পাপাচার করে বেড়ায় বা যার অন্যায়-অপকর্ম সম্পর্কে সমাজের সব মানুষ জানে তাহলে তা ভিন্ন কথা। এটি প্রকাশ করলে গীবত হবে না। এমন ব্যক্তির পাপাচারের কথা মানুষকে বলায় কোন দোষ নেই। যেন মানুষ তার ব্যাপারে সতর্ক হয় এবং তার মাধ্যমে প্রভাবিত না হয়।

❑ আপনি যদি কোন ভালো মানুষের পাপ ঢেকে রাখেন কিন্তু সে যদি নিজেই তা প্রকাশ করে দেয় বা অন্য কেউ তা প্রকাশ করে দেয় তাহলে আপনি গুনাহগার হবেন না ইনশাআল্লাহ। কারণ, আপনি আপনার যা করণীয় তা করেছেন। বরং যে ব্যক্তি তা প্রকাশ করবে সেই গুনাহগার হবে।
আল্লাহু আলাম।
—————————
লেখক; আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল
(লিসান্স, মদীনা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, সউদী আরব)
দাঈ, জুবাইল দাওয়াহ এন্ড গাইডেন্স সেন্টার, সউদী আরব।।

Share This Post